২৩, মার্চ, ২০১৯, শনিবার | | ১৬ রজব ১৪৪০

ইঁদুর ধরতে না পারলে বিড়ালের কী দরকার: ‍দুদককে হাইকোর্ট

আপডেট: মার্চ ৭, ২০১৯

ইঁদুর ধরতে না পারলে বিড়ালের কী দরকার: ‍দুদককে হাইকোর্ট

দুর্নীতি দমন কমিশনের দায়ের করা ২৬ মামলায় ভুল আসামি হিসেবে তিন বছর জেলে কাটানো পাটকল শ্রমিক জাহালমের কারাবাসের দায় দুদকের এড়ানোর সুযোগ নেই বলে মনে করে হাইকোর্ট।

বুধবার এই বিষয়ক শুনানিতে এই ঘটনা নিয়ে দুদকের কার্যক্রমে উষ্মা প্রকাশ করে আদালত বলেন, যে ইঁদুর ধরতে না পারলে সেই বিড়ালের প্রয়োজন নেই।

আসামি না হয়েও দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মামলায় জাহালমের বিনাদোষে কারাবাসের ঘটনায় মঙ্গলবার দুদক হলফনামা আকারে ব্যাখ্যা দাখিল করে।

তার উপর শুনানির পর বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কামরুল কাদেরের হাই কোর্ট বেঞ্চ বুধবার আদেশ দেয়।

আদেশে জাহালমের (সালেক) বিরুদ্ধে দুদকের করা সব মামলার প্রাথমিক তথ্য বিবরণী (এফআইআর), অভিযোগপত্র (সিএস)সহ যাবতীয় নথিও চেয়েছে হাইকোর্ট।

আগামী ১০ এপ্রিল পরবর্তী শুনানির তারিখ রেখে এই সময়ের মধ্যে তা আদালতে নিয়ে আসতে দুদককে নির্দেশ দেয়া হয়।

এছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকসহ পাঁচটি বাণিজ্যিক ব্যাংককে পক্ষভূক্ত করার আবেদন গ্রহণ করে আদালত জাহালমকাণ্ডে সম্পৃক্ত বাকি ব্যাংকগুলোকেও পক্ষভুক্ত করতে নির্দেশ দিয়েছে দুদককে।

গত ৩ ফেব্রুয়ারি জাহালমের জামিন আদেশের পর দুদকের আইনজীবী এ বিষয়ে সবিস্তার ব্যাখ্যা দাখিলের জন্য চার সপ্তাহের সময় নিয়েছিলেন। মঙ্গলবার আদালতে ব্যাখ্যা দাখিল করে দুদক এই ঘটনায় ব্যাংক কর্মকর্তাদের দায়ী করেন।

তার আগে সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক, সিটি ব্যাংক লিমিটেড, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক, ব্র্যাক ব্যাংককে এ রিট মামলায় পক্ষভুক্ত করতে আবেদন করে দুদক।

তার মধ্যে সোনালী ব্যাংক আগেই এ মামলায় পক্ষভুক্ত থাকায় বাংলাদেশ ব্যাংকসহ বাকি চারটিকে বুধবার পক্ষভূক্ত করে নেয় আদালত।