২২, জুলাই, ২০১৯, সোমবার | | ১৯ জ্বিলকদ ১৪৪০

ওয়ালটনের ফোরজি ফোন ‘প্রিমো এইচএইট’ এলো টার্বো এডিশনে

আপডেট: জুলাই ৮, ২০১৯

ওয়ালটনের ফোরজি ফোন ‘প্রিমো এইচএইট’ এলো  টার্বো এডিশনে

প্রযুক্তিপণ্যের দেশীয় প্রতিষ্ঠান ওয়ালটনের জনপ্রিয় ফোরজি স্মার্টফোন ‘প্রিমো এইচএইট’। চলতি বছরের শুরুর দিকে ২ এবং ৩ জিবি র‍্যামের আলাদা দুটি সংস্করণে ফোনটি বাজারে আসে। ব্যাপক ক্রেতাচাহিদার প্রেক্ষিতে এবার টার্বো এডিশনে প্রিমো এইচএইট নিয়ে এলো ওয়ালটন। ওয়ালটন সেলুলার ফোন বিক্রয় বিভাগের প্রধান আসিফুর রহমান খান জানান, টার্বো এডিশনে ফোনটির ২ এবং ৩ জিবি র্যামের উভয় সংস্করণেই ব্যবহার করা হয়েছে ১.৫ গিগাহার্জ গতির কোয়াডকোর প্রসেসর। এতে ফোনটির কার্যক্ষমতা আগের চেয়ে অনেক বেড়েছে। ফলে বিভিন্ন অ্যাপস ব্যবহার, ইন্টারনেট ব্রাউজিং, থ্রিডি গেমিং এবং দ্রুত ভিডিও লোড ও ল্যাগ-ফ্রি ভিডিও স্ট্রিমিং সুবিধা পাওয়া যাবে। তিনি আরও জানান, প্রসেসরের ক্ষমতা বাড়ানো হলেও ফোনটির দাম বাড়েনি। বরং ২ জিবি র‍্যাম সংস্করণটি আগের চেয়ে আরও কম মূল্যে পাচ্ছেন ক্রেতারা। টার্বো এডিশনে প্রিমো এইচএইটের ৩ জিবি র‍্যামের ফোনটি পাওয়া যাচ্ছে ৭,৯৯৯ টাকায়। আর ২ জিবি র‍্যামে এটি মিলছে মাত্র ৬,৮৯৯ টাকায়। ওয়ালটন সূত্রে জানা গেছে, এই ফোনে ব্যবহৃত হয়েছে আইপিএস প্রযুক্তির ১৮:৯ রেশিওর ফুল-ভিউ ডিসপ্লে। ৫.৪৫ ইঞ্চির এইচডি প্লাস পর্দার রেজ্যুলেশন ১৪৪০ বাই ৭২০ পিক্সেল। ক্যাপাসিটিভ টাচ স্ক্রিন সুবিধাযুক্ত স্মার্টফোনটিতে রয়েছে ধূলা ও আঁচররোধী ২.৫ডি কার্ভড গ্লাসও। ‘প্রিমো এইচএইট’ অ্যান্ড্রয়েড ৮.১ ওরিও অপারেটিং সিস্টেমে পরিচালিত। উভয় ভার্সনে রয়েছে পাওয়ার ভিআর জিই৮১০০ গ্রাফিক্স। অভ্যন্তরীণ মেমোরি ১৬ গিগাবাইটের। যা মাইক্রো এসডি কার্ডের মাধ্যমে ৬৪ গিগাবাইট পর্যন্ত বাড়ানো যাবে।

ফোনটির পেছনে রয়েছে এলইডি ফ্ল্যাশযুক্ত ৮ মেগাপিক্সেল সনি ক্যামেরা, যাতে ফুল এইচডি ভিডিও ধারণ করা যাবে। আকর্ষণীয় সেলফির জন্য সামনে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল ওমনিভিশন ক্যামেরা। ক্যামেরায় নরমাল মোড ছাড়াও রয়েছে প্রো মোড, ফেস বিউটি, ফেস ডিটেকশন, ডিজিটাল জুম, সেলফ টাইমার, অটো-ফোকাস, টাচ-ফোকাস, এইচডিআর, প্যানোরমা, সিন মোড, ফিংগার ক্যাপচারসহ অসংখ্য আকর্ষণীয় ফিচার। পর্যাপ্ত পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য স্মার্টফোনটিতে ব্যবহৃত হয়েছে ৩২০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারি। কানেক্টিভিটি হিসেবে আছে ডুয়াল ব্যান্ড ওয়াই-ফাই, ব্লুটুথ ভার্সন ৪, মাইক্রো ইউএসবি ভার্সন ২, ওয়ারলেস ডিসপ্লে, ল্যান হটস্পট, ওটিএ এবং ওটিজি। সেন্সর হিসেবে আছে গ্রাভিটি (থ্রিডি), জিপিএস, এ-জিপিএস, লাইট (ব্রাইটনেস), প্রোক্সিমিটি ইত্যাদি। ফোনের সুরক্ষায় রয়েছে ফেস আনলক এবং ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর। দেয়া যাবে স্ক্রিন লক পাসওয়ার্ডও। মিডনাইট ব্লু, রোজ গোল্ড এবং টোয়াইলাইট ব্লু এই তিনটি আকর্ষণীয় রঙে হ্যান্ডসেটটি বাজারে ছাড়া হয়েছে। এর অন্যান্য ফিচারের মধ্যে রয়েছে ডুয়াল সিমে ফোরজি নেটওয়ার্ক সাপোর্ট, রেকর্ডিং সুবিধাসহ এফএম রেডিও, ফুল এইচডি ভিডিও প্লে-ব্যাক, নোটিফিকেশন লাইট, ইত্যাদি। দেশে তৈরি এই স্মার্টফোনে রয়েছে বিশেষ রিপ্লেসমেন্ট সুবিধা। স্মার্টফোন কেনার ৩০ দিনের মধ্যে ত্রুটি ধরা পড়লে ফোনটি পাল্টে ক্রেতাকে নতুন আরেকটি ফোন দেয়া হবে। এছাড়াও, ১০১ দিনের মধ্যে প্রায়োরিটি বেসিসে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ক্রেতা বিক্রয়োত্তর সেবা পাবেন। তাছাড়া, স্মার্টফোনে এক বছরের এবং ব্যাটারি ও চার্জারে ছয় মাসের বিক্রয়োত্তর সেবা তো থাকছেই।