২৭, মে, ২০১৯, সোমবার | | ২২ রমজান ১৪৪০

বিবাহিত হয়েও ছাত্রলীগের কমিটিতে মিস ওয়ার্ল্ডের লাবণী

আপডেট: মে ১৫, ২০১৯

বিবাহিত হয়েও ছাত্রলীগের কমিটিতে মিস ওয়ার্ল্ডের লাবণী

বিবাহিত হয়েও ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান পেয়েছেন মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়া বিতর্কিত আফরিন সুলতানা লাবণী। তিনি উপ-সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদ পেয়েছেন। যদিও ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রের ৫-এর গ ধারা অনুযায়ী কোনো বিবাহিত ব্যক্তি সংগঠনটির পদে আসতে পারবেন না বলে উল্লেখ আছে।

গঠনতন্ত্র লঙ্ঘন করে বিবাহিত হয়েও ছাত্রলীগে পদ পাওয়ায় সমলোচিত হচ্ছে কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া নিয়ে। জানা গেছে, লাবণী জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেম বিভাগে অধ্যয়ন করছেন। এর আগে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন লাবণী।

সোমবার (১৩ মে) বিকালে ঘোষিত হলো বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির পূর্ণাঙ্গ তালিকা। কেন্দ্রীয় ওই কমিটিতে পদ পাওয়া না পাওয়া নিয়ে চলছে উত্তেজনা ও সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ।

ইতিমধ্যে ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে ঢাবিতে দু’পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় ডাকসুর তিন নেতাসহ অন্তত ৮জন আহত হয়েছেন।

তবে এতোসবের মাঝেও যে চমক রয়েছে তাহলো কমিটিতে উপ-সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদটি দেয়া হয়েছে মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশে অংশ নেয়া আলোচিত আফরিন লাবণীকে।

সর্বশেষ মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ সুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন লাবণী। চূড়ান্ত পর্ব পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছেছিলেন এই শিক্ষার্থী। তবে চূড়ান্ত পর্বে বিচারক ইমির এক প্রশ্নের জবাব দিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচিত ও ট্রলড হয়েছিলেন তিনি।

তাকে নিয়ে হাস্যরসে মেতে ওঠে নেটজনতা। টিকটক ভিডিও বানানো হয় সেই সেগমেন্ট নিয়ে। সেই অনুষ্ঠানে তাকে বিচারক প্রশ্ন করেছিলেন, ‘তোমাকে যদি তিনটি উইশ করতে বলা হয়, সে উইশগুলো কী হবে?’

এমন প্রশ্নে লাবণী জানিয়েছিলেন, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সি-বিচ কক্সবাজার, সুন্দরবন এবং পাহাড়-পর্বতকে তিনি উইশ করতে চান। লাবণীর এমন উত্তরে ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়।’

জানা গেছে, ছাত্র রাজনীতিতে বেশ সক্রিয় লাবনী। এর আগে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন।

তিনি বর্তমানে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিবিএ (স্নাতক) সম্পন্ন করে বর্তমানে এমবিএতে অধ্যয়নরত।এদিকে কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হওয়ায় বেশ উচ্ছ্বসিত মডেল আফরিন লাবণী।

গণমাধ্যমে নিজের এই উচ্ছ্বাস প্রকাশে তিনি বলেন, ‘আমার অনেক বড় স্বপ্নপূরণ হয়েছে। এই ঐতিহ্যবাহী সংগঠনে দায়িত্ব পেয়ে আমি নিজেকে ধন্য মনে করছি। কেন্দ্রীয় কমিটিতে জায়গা পেয়ে আমি ভীষণ আনন্দিত। দল আমার পরিশ্রমের মূল্য দিয়েছে।’

রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হওয়ার বিষয়ে লাবণী জানান, ‘স্কুলের গণ্ডি পার হবার পর থেকে থেকেই রাজনীতির প্রতি আমার ভালোলাগা কাজ করে। আর ছাত্রলীগ আমাকে সবসময় অনুপ্রেরণা যুগিয়েছে।’

নিজের দায়িত্ব সম্পর্কে তিনি বলেন,‘ ছাত্রলীগ হচ্ছে এমন একটি সংগঠন যার মাধ্যমে দেশের সব ভালো কাজে নিজেকে নিয়োজিত করা যায়। আমি নিজেকে সবসময় দেশের সেবায় নিয়োজিত রাখতে চাই।’

সেই বিশ্বসুন্দরী প্রতিযোগিতার পর আর শোবিজে দেখা যাচ্ছে না তাকে। এ বিষয়ে লাবণী বলেন, ‘হা পড়াশোনা আর রাজনীতির জন্য সময় করে উঠতে পারছি না। তবে রাজনীতির পাশাপাশি আগামীতে মিডিয়ার কাজে সম্পৃক্ত থাকতে চেষ্টা করব।’

জানা গেছে, লাবণীর সাবেক স্বামী জামালপুর সদরের বাগেরহাটা কলেজ রোডের বাসিন্দা আতাউর রহমান আতিক। আতিক পেশায় ব্যবসায়ী, পাশাপাশি কয়েকটি মিউজিক ভিডিওতে মডেল হয়েও কাজ করেছেন তিনি। ২০১২ সালে তাদের বিয়ে হয়। পরবর্তীতে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়।