১৮, জুন, ২০১৯, মঙ্গলবার | | ১৪ শাওয়াল ১৪৪০

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পিটিআই-নয়নপুর সড়কের সংস্কার কাজে অনিয়মের অভিযোগ

আপডেট: এপ্রিল ৩০, ২০১৯

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পিটিআই-নয়নপুর সড়কের সংস্কার কাজে অনিয়মের অভিযোগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা পরিষদের নিয়ন্ত্রণাধীন পৌর এলাকার কাজীপাড়া পিটিআই-নয়নপুর সড়কের নয়নপুর অংশের সংস্কার কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।

নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী দিয়ে রাতের বেলা দায়সারাভাবে কাজ করছে বলে অভিযোগ করেছে এলাকাবাসী।

তবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দাবি, দরপত্রের নির্দেশনা মোতাবেকই সংস্কার কাজ করা হচ্ছে।

জানা গেছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদের অর্থায়নে ও তদারকিতে প্রায় সাড়ে ২৪ লাখ টাকা ব্যয়ে সংস্কার কাজটি বাস্তবায়িত হচ্ছে। এর সংস্কার কাজ বাস্তবায়ন করছেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স হোসেন বিল্ডার্স। রাস্তাটি খুবই জনগুরুত্বপূর্ণ। এ রাস্তা দিয়ে পৌর এলাকার নয়নপুর, পুনিয়াউট, চন্ডারখিল, দাতিয়ারাসহ সদর উপজেলার রামর্ইাল ইউনিয়নের লোকজন চলাচল করে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, নিম্নমানের ইটের সুরকির সাথে বালি মিশিয়ে রাস্তার মেকাডম করা হচ্ছে। রাস্তার পাশের এজিং করা হচ্ছে নিম্নমানের ইট দিয়ে। নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে দায়সারাভাবে রাস্তার সংস্কার কাজ করছে। এতে করে সড়কের স্থায়িত্ব খুবই স্বল্প সময়ের হবে বলে আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসীরা।

নয়নপুর গ্রামের বাসিন্দা জহির মিয়ার অভিযোগ, ঠিকাদারের লোকেরা রাতের বেলা কাজ করছে। ভেকু মেশিন দিয়ে আগে রাস্তা উল্টানো হয়েছে। বর্তমানে নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী দিয়ে দায়সারাভাবে সংস্কার কাজ করার ফলে কয়েকমাসও এ কাজ টিকবে না। রাস্তা দিয়ে ভারী ট্রাক গেলে রাস্তাটি অল্পদিনেই নষ্ট হয়ে যাবে।

একই গ্রামের বাসিন্দা মিজান মিয়া ও নুরুল ইসলাম বলেন, রাস্তায় ব্যবহৃত ইট ও সুরকি নিম্নমানের তার ওপর বালিও দেয়া হচ্ছে খুবই কম। রাস্তায় রোলার করার সময় নিম্নমানের সুরকি পাউডার হয়ে যাচ্ছে।

এ ব্যাপারে সংস্কার কাজ বাস্তবায়নকারী ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স হোসেন বিল্ডার্সের কর্ণধার মো. হোসেন মিয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, কাজের দায়িত্বপ্রাপ্ত জেলা পরিষদের প্রকৌশলীর তত্ত্বাবধানেই রাস্তার সংস্কার কাজ করা হচ্ছে। রাস্তায় কিছু নিম্নমানের ইট ও সুরকি থাকায় তদারকি কর্মকর্তার নির্দেশে এসব অপসারণ করা হয়েছে।

জেলা পরিষদের উপ-সহকারি প্রকৌশলী ও সংস্কার কাজের তদারকি করা কর্মকর্তা আবদুল হামিদ বলেন, রাস্তায় ব্যবহারের জন্য আনা নিম্নমানের ইট ও সুরকি ইতিমধ্যেই অপসারণ করা হয়েছে। স্পেসিফিকেশন অনুযায়ীই রাস্তার সংস্কার কাজ করা হচ্ছে। এখানে অনিয়মের কোনো সুযোগ নেই।

উল্লেখ্য, প্রায় সাড়ে ২৪ লাখ টাকা ব্যয়ে জেলা পরিষদের অর্থায়নে পৌর এলাকার কাজীপাড়া পিটিআই-নয়নপুর সড়কের নয়নপুর অংশের ৪৭০ মিটার লম্বা এবং ১২ ফুট প্রস্থ রাস্তার সংস্কার কাজ করা হচ্ছে।