২২, জুলাই, ২০১৯, সোমবার | | ১৯ জ্বিলকদ ১৪৪০

মুসলিম বলেই বাদ পড়লেন শামিঃ মঈন

আপডেট: জুলাই ৭, ২০১৯

মুসলিম বলেই বাদ পড়লেন শামিঃ মঈন

আসরের দ্বিতীয় দল হিসেবে চলতি বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল অনেক আগেই নিশ্চিত করেছিল ভারত। এ কারণে শনিবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটি ছিল তাদের শুধুই আনুষ্ঠিকতার। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার লক্ষ্য নিয়ে লঙ্কানদের মুখোমুখি হয়ে এই ম্যাচেও জয় হাতছাড়া করেনি ভারতীয়রা। রোহিত শর্মা ও লোকেশ রাহুলের সেঞ্চুরির উপর ভর করে লঙ্কানদের ৭উইকেটে হারিয়েছে তারা।

তবে ভারতের জয়কে ছাপিয়ে আলোচনায় এসেছে এই ম্যাচে পেসার মোহাম্মদ শামিকে দলে না রাখা। বিশ্রাম দেয়ার জন্যই মূলতঃ এই ম্যাচে দুই খেলোয়াড় মোহাম্মদ শামি এবং ইয়ুজবেন্দ্র চাহালকে একাদশ থেকে বাদ দিয়েছে দলটি। তবে মোহাম্মদ শামিকে দলে না রাখা নিয়ে রীতিমত বোমা ফাটালেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার মঈন খান। তার মতে, মুসলিম বলেই শামিকে লঙ্কানদের বিরুদ্ধে খেলায়নি ভারত। মঈন খান বলেন, ‘আমি হলে (মেনেজমেন্টে থাকলে) শামিকে বাদ দিতাম না। যে বোলার মাত্র তিন ম্যাচে ১৪ উইকেট নিয়েছে, তাকে হঠাৎ করে আপনি পরবর্তী ম্যাচে বসিয়ে দিলেন। এছাড়া সে রেকর্ডের সামনে দাঁড়িয়ে ছিল। এই ম্যাচ খেললে সে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারীর তালিকায় দুই অথবা তিনেও চলে আসতে পারত। আমি বুঝতে পারছি না, আমার মনে হয় শামিকে বাদ দেয়ার জন্য কোনো চাপ দেয়া হয়েছে। আমি মনে করি, বিজেপির এজেন্ডা অনুযায়ী মুসলিমদের উন্নতি না করার জন্যই শামিকে বাদ দেয়া হয়েছে।’ শামিকে নিয়ে ধর্মীয় ইস্যু টেনে আনাটা এবারই প্রথম নয়। এর আগেও ইংল্যান্ড-ভারত ম্যাচে তাকে নিয়ে এমন মন্তব্য করেছিলেন পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার আব্দুল রাজ্জাক। ওই ম্যাচে শামি পাঁচ উইকেট নিলেও ৩১ রানে হারতে হয়েছে ভারতকে। ওখানে ইংল্যান্ডের বদলে ভারত জিতলে বর্তমানে সেমিফাইনালে থাকত পাকিস্তান। আব্দুল রাজ্জাকের মতে, ওই ম্যাচে একমাত্র শামিই মুসলিম হিসেবে পাকিস্তানকে সাহায্য করার পূর্ণ চেষ্টা করেছিল। বিশ্বকাপ স্কোয়াডে থাকলেও ভারতীয় একাদশে শুরু থেকেই ভ্রাত্য ছিলেন শামি; কিন্তু মাঝে ভুবনেশ্বর কুমার ইনজুরিতে পড়ায় একাদশে সুযোগ পেয়ে যান তিনি এবং চার ম্যাচ খেলে ভারতের হয়ে মোট ১৪ উইকেট নেন এই পেস বোলার। সঙ্গে একটি ম্যাচে হ্যাটট্রিকও করেন তিনি।