২৭, মে, ২০১৯, সোমবার | | ২২ রমজান ১৪৪০

রমজানে দাঁতের চিকিৎসা করালে ভাঙ্গে না রোজা

আপডেট: মে ১৫, ২০১৯

রমজানে দাঁতের চিকিৎসা করালে ভাঙ্গে না রোজা

রোজা রাখা অবস্থায় কারো কারো ক্ষেত্রে দাঁতের চিকিৎসা করানো জরুরি হয়ে পড়তে পারে। রোজা রাখা অবস্থায় দাঁতের চিকিৎসা করাতে গিয়ে অনেকেই দ্বিধায় পড়ে যান। এ দ্বিধার কারণ-রক্তপাতের হবে না তো! দাঁত তোলার কথাই ধরা যাক। দাঁত তোলার পর কিছুটা রক্তপাত হতে পারে। মুখের ভেতরের শল্যচিকিৎসার ক্ষেত্রে কিছু রক্তপাত স্বাভাবিক।

দাঁতের মজ্জা চিকিৎসার সময় সামান্য রক্তপাত হতে পারে মজ্জা থেকে। দাঁতে, দাঁত ও মাড়ির সংযোগস্থলে জমে থাকা পাথর বা ক্যালকুলাস পরিষ্কারের জন্য যখন স্কেলিং করা হয়, তখন রক্তপাতের আশঙ্কা রয়েছে। মাড়ি প্রদাহের ক্ষেত্রে মাড়ির ভেতরের অংশ পরিষ্কার করার (কিউরেটেজ) সময়ও রক্ত বের হতে পারে। কিন্তু রোজা রাখা অবস্থায় যদি দাঁতের চিকিৎসা করতে গিয়ে রক্ত বের হয়, তা হলে কি রোজা ভেঙে যাবে? ইসলামি চিন্তাবিদদের মতে, দাঁত ও মুখগহ্বরের চিকিৎসার সময় রক্তপাত হলে রোজা ভেঙে যায় না।

দাঁতের কোনো কোনো চিকিৎসা, যেমন-দাঁত তোলা, মুখের ভেতরের শল্যচিকিৎসা, দাঁতের মজ্জা প্রদাহে রুট ক্যানাল চিকিৎসার সময় অবশকারক ইঞ্জেকশন (লোকাল অ্যানাস্থেসিয়া) দিতে হয়। এতেও কি রোজা ভেঙে যাবে না। ইসলামী চিন্তাবিদদের মতে, অবশকারক ইঞ্জেকশন নিলে রোজা ভাঙে না। কারণ এ ইঞ্জেকশনের মাধ্যমে রোগী তার শরীরে কোনো পুষ্টি উপাদান গ্রহণ করছেন না। স্কেলিং বা পলিশিং করার সময়, ফিলিং করার জন্য দাঁতে গর্ত তৈরি করা বা দাঁত কাটার সময় যে মেশিন ব্যবহার করা হয়, তা থেকে পানি বেরিয়ে এসে দাঁত শীতল রাখতে সাহায্য করে।

রোজা থাকা অবস্থায় চিকিৎসার সময় এ পানি বেরিয়ে এসে যদি রোজদারের গলায় ঢুকে যায়, তা হলে রোজা ভেঙে যাওয়ার কথা ভেবে অনেকেই শঙ্কিত থাকেন। বাস্তবিক অর্থে, এ জাতীয় চিকিৎসার সময় উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন সাকশান মেশিন ব্যবহার করা হয়, যা মুখের ভেতরের পানি এবং পানি মেশানো থুতু নিমেষেই শোষণ করে নেয়। ফলে গলায় পানি ঢোকার আশঙ্কা নেই বললেই চলে।

রোজা রেখে দাঁত মাজলে, সুতা ব্যবহার করে দাঁতের ফাঁকা স্থান পরিষ্কার করলে (ফ্লোস করা) রোজা হালকা হয়ে যেতে পারে বলে কেউ কেউ ভাবেন। কিন্তু এটিও ভুল ভাবনা। ইসলামী চিন্তাবিদদের মতে, রোজা রাখা অবস্থায় দাঁত মাজলে রোজার কোনো ক্ষতি হয় না। তবে খেয়াল রাখতে হবে, দাঁত মাজার সময় টুথপেস্ট যেন পাকস্থলীতে ঢুকে না যায়। যদি অনিচ্ছাবশত টুথপেস্ট পাকস্থলীতে ঢুকে যায়, রোজা ভঙ্গ হবে না। কারণ এটি একটি অনিচ্ছাকৃত ভুল। লেখক : ডেন্টাল স্পেশালিস্ট তায়েফ ডেন্টাল হাসপাতাল সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, সৌদি আরব