২৭, মে, ২০১৯, সোমবার | | ২২ রমজান ১৪৪০

সফল ব্যক্তিরা যে ১২টি কাজ করেন

আপডেট: মে ১২, ২০১৯

সফল ব্যক্তিরা যে ১২টি কাজ করেন

আমরা করবো জয়… আমরা করবো জয়… আমরা করবো জয় একদিন- বিখ্যাত এই গানটি সাফল্যের প্রতি মানুষের তীব্র ক্ষুধা এবং আকাঙ্ক্ষার কথা জানান দেয়। আসলে সফলতা কি? কিভাবেই বা তা ঠিকভাবে নিরূপণ করা যায়? এ নিয়ে একটি বিখ্যাত উক্তি আছে। তা হলো- ‘সাফল্য শুধু মানুষের অবস্থান দিয়ে পরিমাপ্য না, বরঞ্চ আদতে একজন মানুষ জীবনে কি পরিমাণ বাধাবিঘ্ন অতিক্রম করেছে- সাফল্যের পরিমাপে সেটি একটি বড় বিবেচ্য বিষয়।’ ব্যক্তিগত কিংবা কর্মজীবনে আমরা সবাই সাফল্য এবং ব্যর্থতার সূক্ষ্ম সীমারেখায় যুক্ত পথের যাত্রী। যে পথে সাফল্য এবং ব্যর্থতা পাশাপাশি হাত ধরাধরি করে হাঁটে। তাই, সফল হতে চাইলে আপনাকে ব্যর্থও হতে হবে। শিখতে হবে আশপাশের মানুষের ব্যর্থতা থেকেও।

সফল মানুষরা কিন্তু কেবল জন্মসূত্রে কিংবা ভাগ্যবলে সফল নন। সাফল্যের পেছনে থাকে বিস্তর পরিশ্রম, ত্যাগ, অধ্যবসায় ও ঝুঁকি গ্রহণের গল্প।

বিশ্বখ্যাত ফোর্বস ম্যাগাজিনে সফল ব্যক্তিদের মধ্যে পরিলক্ষিত ১২টি কমন বা সাধারণ গুণাবলির কথা উল্লেখ করা হয়েছে। সাফল্যের জন্য ক্ষুধার্ত? তাহলে নিচের তালিকাটি পড়ে নিতে পারেন। সফল ব্যক্তিরা সাধারণত-

১. সাহসিকতার সঙ্গে ব্যর্থ হন: ব্যর্থতা আসবেই। তা আপনি যতই গুণান্বিত হন না কেন। সফল মানুষরা এই সহজ সত্যটাকে মেনে নেন। তারা ব্যর্থতার ভেতর দিয়েই সাফল্যের অন্বেষণ চালিয়ে যান। যখন সাধারণ মানুষ হাল ছেড়ে দেন, তখনও তারা চেষ্টা চালিয়ে যান। একই ব্যর্থতার বৃত্তে জড়ান না বারবার। জীবন থেকে শিক্ষা নেন।

২. লক্ষ্য নির্ধারণ করেন: কেবলমাত্র ‘লং টার্ম’ গোল বা লক্ষ্য নয়, সফল ব্যক্তিরা সচেতন হন ‘শর্ট টার্ম’ বা প্রাত্যহিক লক্ষ্য অর্জনে। প্রতিদিনকার বিন্দু বিন্দু জমিয়ে তারা তৈরি করে নিতে জানেন সিন্ধু।

৩. শুধুমাত্র ভাগ্যে বিশ্বাসী হন না: সাফল্য কদাচিৎ ভাগ্যের দান। যদিও সাফল্যে ভাগ্যের সহায়তা দরকার পড়ে। তবে একনিষ্ঠতা, শ্রম আর ঘামের মূল্যেই মূলত সাফল্য অর্জন করে নিতে হয়। অনেক সময় ভাগ্য বিরূপ হতেই পারে। তবে পরিশ্রম দিয়ে তা অতিক্রম করে ছিনিয়ে আনা যায় সাফল্য। সফলরা তা-ই করেন।

৪. পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে রাখেন: সচেতন পর্যবেক্ষণ সার্বিক পরিস্থিতির পরিষ্কার চিত্র তুলে ধরে। কোথায় কি ঘাটতি, তা পুরনে কি যা করণীয়; যা করণীয় তার সঠিক বাস্তবায়ন হচ্ছে কিনা এই সব কিছু বুঝতে পারা যায় সচেতন পর্যবেক্ষণে।

৫. কাজে দেরি করেন না: সফল ব্যক্তিরা যে সব প্রশ্নের সঠিক উত্তর জানেন, এমনটা নয়। তবে তারা যে কোনো প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পেতে সিদ্ধান্ত গ্রহণে তৎপর হন। ভয়ে কিংবা নিশ্চয়তার চিন্তায় পিছু হটেন না।

৬. দৃষ্টিপাত করেন সামগ্রিক চিত্রে: শুধু অতীত, বর্তমান বা ভবিষ্যৎ নয়, সফল ব্যক্তিরা চোখ রাখেন সার্বিক পরিস্থিতিতে। দেখতে চেষ্টা করেন সামগ্রিক ফলাফল। অতীত, বর্তমান, ভবিষ্যৎ- এই তিনকে এক সুতোয় গেঁথে তৈরি করেন সাফল্যের বরমাল্য।

৭. নিজের প্রতি আস্থা রাখেন: সফল ব্যক্তিরা নিজের প্রতি আস্থাশীল হন। নিজের শক্তি এবং দুর্বলতার ব্যাপারে ওয়াকিবহাল হন। নিজেকে দিয়ে কি সম্ভব আর কি সম্ভব না এ ব্যাপারে স্বচ্ছ ধারণা থাকায় তারা সুসিদ্ধান্ত নিতে পারেন বেশির ভাগ সময়।

৮. নিবেদিত হন: লক্ষ্যের প্রতি আত্মনিয়োগ ব্যতীত সাফল্য অর্জন কঠিন। সবচেয়ে সফল মানুষেরা সবচেয়ে নিবেদিত-ও হন।

৯. সাবধানতা অবলম্বন করেন: সফল হতে হলে সাবধানতা প্রয়োজন। চোখ কান খোলা রেখে চারপাশের পরিবেশ বোঝার চেষ্টা না করার মানে হলো- সুযোগ হাতছাড়া করা। সফল ব্যক্তিরা সাবধানতার সঙ্গে শোনেন, ভাবেন ও বোঝেন।

১০. হাল ছাড়েন না: সফল ব্যক্তিরা হাল ছাড়েন না। তারা কি ব্যর্থ হন? অবশ্যই। তবে ব্যর্থতা এলেই তাদের জীবনীশক্তি ফুরিয়ে যায় না। প্রতিকূলতার মধ্যেও কাজ চালিয়ে যান।

১১. যোগাযোগে তুখোড় হন: সফল ব্যক্তিরা শাণিত যোগাযোগ দক্ষতার অধিকারী হন। সহজেই মানুষকে বুঝতে এবং বোঝাতে পারেন। সমঝোতায় পটু হন। বাচনভঙ্গিতে হন আত্মবিশ্বাসী।

১২. বিনয়ী হন: সাফল্যের সঙ্গে সঙ্গে অহঙ্কার চলে আসা ভালো না। অনেক সফল ব্যক্তির মধ্যে অহঙ্কারের ছিটেফোঁটাও দেখা যায় না। তারা নিজের সীমাবদ্ধতা বোঝেন। বোঝেন অন্যেরটাও। ক্ষমা চাইতে জানেন। করতেও জানেন।

সফলতার খোঁজে বিভোর হলে-
উপরোক্ত অভ্যাসগুলো চর্চা করুন।
সফলতা আপনাকে খুঁজে নিবে।