৬, ডিসেম্বর, ২০১৯, শুক্রবার | | ৮ রবিউস সানি ১৪৪১

ভালোবাসার নিদর্শনস্বরূপ মসজিদ উপহার!

প্রকাশিত: ১০:৩৩ পূর্বাহ্ণ , ডিসেম্বর ২, ২০১৯

ভালোবাসার নিদর্শনস্বরূপ মসজিদ উপহার!

ধর্ম ডেস্ক: জিবুতি। প্রায় ১০ লাখ মানুষের দেশ। ৯৮ শতাংশ মুসলিম অধ্যুষিত দেশটি। ভ্রাতৃত্ব ও ভালোবাসার নির্দশনস্বরূপ দেশটি উপহার পাচ্ছে বিশাল প্রাসাদসম এক মসজিদ। খুব শিগগিরই মসজিদটি উদ্বোধন হবে।

উত্তর-পূর্ব আফ্রিকার দ্বীপ দেশ জিবুতি। উসমানি সম্রাজ্যের স্থাপত্যের আদলে ১৩ হাজার বর্গ মিটার জাগয়া জুড়ে সমুদ্রতীরে উপহারস্বরূপ দৃষ্টিনন্দন মসজিদ নির্মাণে পুরো অর্থায়ন করেছে তুরস্ক।

মসজিদটি শুধু জিবুতিতে নয়, বরং পুরো পূর্ব আফ্রিকার বৃহত্তম মসজিদে পরিণত হবে। উসমানি সম্রাজ্যের শেষ সম্রাট সুলতান দ্বিতীয় আব্দুল হামিদ-এর নামে মসজিদ কমপ্লেক্স-এর নামকরণ করা হয়েছে।

জিবুতির সুলতান আব্দুল হামিদ মসজিদে একসঙ্গে ৬ হাজার মানুষ নামাজ আদায় করতে পারবে। দৃষ্টিনন্দন এ মসজিদে রয়েছে ৪৬ মিটার উচ্চতার দুটি মিনার ও ২৭ মিটার উচ্চতার বিশাল এক গম্বুজ। এছাড়াও আধুনিক সব সুযোগ-সুবিধা, সৌন্দর্য ও নান্দনিকতায় সুলতান আবদুল হামিদ মসজিদ জেবুতিসহ পূর্ব আফ্রিকার অদ্বিতীয় মসজিদের খেতাব লাভ করতে যাচ্ছে।

২০১৫ সালে পূর্ব আফ্রিকার দ্বীপ রাষ্ট্র জিবুতিতে এক রাষ্ট্রীয় সফরে এসেছিলেন তুরস্কের রাষ্ট্রপতি রিসেপ তাইপে এরদোয়ান। তিনি জিবুতিতে একটি মসজিদ নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন জিবুতির রাষ্ট্রপতি ইসমাইল ওমর গুল্লেহ। সে সময় উভয় দেশের রাষ্ট্রপতি এ মসজিদের ভিত্তি স্থাপন করেন।

তুরস্কের ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে নব নির্মিত সুলতান আব্দুল হামিদ মসজিদে এক সঙ্গে ৬ হাজার লোকের নামাজ পড়ার ব্যবস্থা ছাড়াও এক সঙ্গে ৪০০ মানুষের ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন একটি ইসলামি শিক্ষাকেন্দ্র, সুবিশাল কনফারেন্স রুম, গণপাঠাগার, ধর্মীয় অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য উন্মুক্ত হলরুম এবং শিশুদের কোরআন শিক্ষার জন্য স্বতন্ত্র মাদরাসা রয়েছে এ মসজিদ কমপ্লেক্সে।

উল্লেখ্য যে, সুবিশাল এই সুলতান আব্দুল হামিদ মসজিদ কমপ্লেক্সটি জিবুতির রাষ্ট্রপতির বাসভবনের পাশেই নির্মাণ করা হয়েছে। জিবুতির রাষ্ট্রপতি, দেশটির মানুষ ও দর্শনার্থীদের জন্য এটি তুরস্কের রাষ্ট্রপতি রিসেপ তাইফে এরদোয়ানের দেয়া ভ্রাতৃত্ব ও ভালোবাসার এক অনন্য উপহার।

দুই দেশের ভালোবাসার নিদর্শন দেখতে ইতিমধ্যেই জিবুতিতে শুরু হয়েছে হাজারো ভ্রমণপিপাসু পর্যটকদের আনাগোনা। উসমানি সম্রাজ্যের স্থাপত্যের আদলে তৈরি এ মসজিদ কমপ্লেক্স নামাজ, ধর্মীয় শিক্ষা ছাড়াও পর্যটকদের চোখকে করে তুলবে সুশীতল। সাগরের সুশীলতল বাতাসে ভরে উঠবে সমুদ্র তীরে অবস্থিত এ মসজিদের দর্শনার্থী ও নামাজ আদায়কারীদের দেহ-মন ও প্রাণ।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।