৩০শে মার্চ, ২০২০ ইং, সোমবার
৬ই শাবান, ১৪৪১ হিজরী

বরিশালে মাদক নির্মূলে কঠোর অবস্থানে প্রশাসন

প্রকাশিত: ৬:০২ অপরাহ্ণ , ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২০

বরিশালে মাদক নির্মূলে কঠোর অবস্থানে প্রশাসন

বরিশাল প্রতিনিধিঃ  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করে বরিশালে মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর ভাবে কাজ করছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। প্রশাসনের কঠোর অবস্থানের কারনে ২০১৮ সালের চেয়ে সদ্য বিদায়ী ২০১৯ সালে বেড়েছে মাদক মামলা, আটক হয়েছে অনেক মাদক ব্যবসায়ী।

বরিশাল মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিসংখ্যান সূত্রে জানা গেছে, ২০১৯ সালে বরিশাল বিভাগের ছয় জেলায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়েছে ৩৪৯টি। এছাড়া বরিশাল জেলায় পাঁচ বেসরকারি মাদক নিরাময় কেন্দ্রে ৩৮৩ জন মাদকাসক্তকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর বরিশালের উপ-পরিচালক এএম হাফিজুর রহমান বলেন, আমরা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর, পুলিশ, র‌্যাব, জেলা প্রশাসন, ‘কোষ্ট গার্ড সহ সবাইকে নিয়ে আমরা মাদকের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালাচ্ছি, প্রধানমন্ত্রীর জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ বাস্তবায়নের জন্য আমরা একযোগে কাজ করছি।’

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের তথ্যমতে বিগত বছর মাদক মামলা হয়েছে ১২২৪ টি, ২০১৮ সালে মাদক মামলা হয়েছিলো ১০৮৮টি। বরিশাল মেট্রাপলিটন পুলিশের কমিশনার শাহাবুদ্দিন খান বিপিএম-বার বলেন, ‘মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান চলমান আছে, আমরা শূণ্য সহিষ্ণুতা নিয়ে বরিশালে আমরা মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অভিযান চালিয়ে যাচ্ছি, প্রতিনিয়তই আমরা মাদক ব্যবসায়ীদের ধরছি।’

মেট্রোপলিটন পুলিশের শীর্ষ এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘এইযে নতুন বর্ষ শুরু হলো, আমি মনে করি এই বছরে আমাদের প্রধান অঙ্গিকার হলো আমরা একটি সম্পূর্ণ মাদকমুক্ত সমাজ চাই, মাদকমুক্ত নিরাপদ পরিবেশ চাই এবং তার জন্য আমরা সবাই মিলে একসাথে কাজ করবো।’

এদিকে রেঞ্জ ডিআইজির উদ্যোগে এই অঞ্চলের মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারীরা ফিরে আসছেন আলোর পথে। এরই মধ্যে তার হাত ধরে সুস্থ জীবনে ফিরতে আত্মসমর্পন করেছেন বরিশাল বিভাগের ১১৪১ জন মাদক ব্যবসায়ী ও ৩৫২ জন মাদক সেবনকারী। যাদের চিকিৎসা, পুনর্বাসন ও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাও করে দিয়েছেন ডিআইজি শফিকুল ইসলাম।

ডিআইজ শফিকুল ইসলাম বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে যে আইনী ব্যবস্থা আছে সেই আইনী ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সেবীদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এ পর্যন্ত বরিশাল বিভাগের সবগুলো জেলায় ১১৪১ জন মাদক ব্যবসায়ী আত্মসমর্পণ করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছে এবং ৩৫২জন মাদকসেবীকে আমরা মাদক নিরাময় কেন্দ্র পাঠিয়ে সুস্থ্য করেছি তারা এবং স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এনেছে।’
এছাড়া মাদক নির্মুলে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষদের নিয়ে প্রতিনিয়ত সচেতনতামূলক বিভিন্ন সভা করে আসছেন প্রশাসন। সমাজের সকলের সহযোগিতা অব্যাহত থাকলে প্রশাসনের এ কার্যক্রমে আরো সুফল আসবে বলেও মনে করছেন সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।