সোমবার, ২৫শে মে, ২০২০ ইং

জামালপুরের চরাঞ্চলে ভুট্টার কৃষি বিল্পব!

প্রকাশিত: ১২:৪০ অপরাহ্ণ , মার্চ ৭, ২০২০

জামালপুরের চরাঞ্চলে ভুট্টার কৃষি বিল্পব!

জামালপুর প্রতিনিধিঃ জামালপুর জেলার বিভিন্ন উপজেলার চরাঞ্চলে আগাম জাতের ভুট্টার বাম্পার ফলনের
সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। রোপণকৃত ভুট্টার ভালো ফলনে এখানকার কৃষক উৎপাদিত ফসল থেকে লাভের আশা করছেন। এর আগে জেলার মেলান্দহ, মাদারগঞ্জ, ইসলামপুর, দেওয়ানগঞ্জ, বকশিগঞ্জ, সরিষাবাড়ী এবং জামালপুর সদর উপজেরার চরাঞ্চলের মানুষের কৃষি ফসল হিসেবে গম, মাশকালাই, চিনা, খেসারী কালাই, বাদাম ও সরিষাসহ নানা ফসলের চাষাবাদ হতো।

এখানে কৃষি এসব ফসল উৎপাদনে উন্নত প্রশিক্ষণ না থাকায় কৃষির তেমন বিল্পব ঘটেনি। সে সময় বিঘা প্রতি ফলন কম হওয়ায় উৎপাদন অনেকটা বন্ধ করে দেয় কৃষকরা।

এখন বিশ্বের উন্নত দেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে উন্নত জাতের উচ্চ ফলনশীল হাইবিড্র জাতের ভুট্টা চাষে ঝুঁকছেন এখানকার কৃষকরা। ভুট্টা যদিও কয়েকশ বছর আগের পুরনো ফসল। যার উৎপত্তিস্থল মেক্সিকো। কালের
আবর্তে ভুট্টা চাষে আগ্রহ ছড়িয়ে পড়ছে বাংলাদেশে।

এ দেশের মানুষ কৃষি নির্ভরশীল। যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ভুট্টাকে কৃষি সম্ভাবনাময় ফসল হিসেবে বেঁচে নেয় চরাঞ্চলের কৃষকরা। সাধারণত ইরি-বোরো চাষ অনুপযোগী জমিতে ভুট্টার চাষ করা হচ্ছে। ভুট্টা চাষ অল্প পরিশ্রম, স্বল্প খরচে বেশি ফলন পাওয়া যায়। এখানে প্রতি শতক জমিতে ২ মণ করে ভুট্টা উৎপাদিত হচ্ছে। ভুট্টা উৎপাদনের খরচের চেয়ে দ্বিগুণ লাভ হয়। শুধু তাই নয় ভট্টার কান্ড জ্বালানি, গবাদি পশুর খাদ্য হিসেবে পাতা ব্যবহার করা
হয়।

এছাড়া ভুট্টার আটা, মৎস খাদ্য, মুরগির খাবারসহ নানা তালিকায় রয়েছে। বর্তমানে ভুট্টা কৃষি বিপ্লব ঘটাতে ও কৃষকের অর্থনৈতিক চাহিদা মেটাতে প্রধান অর্থকরী ফসল হিসেবে তালিকায় রয়েছে।

ভুট্টা চাষি মেলান্দহ উপজেলার ছবিলাপুর গ্রামের নুর-আমিন, ঘোষেরপাড়া গ্রামের রেজাউল করিম, ইসলামপুর উপজেলার চরপুটিমারী ইউনিয়নের বেনুয়ারচর গ্রামের আজগর আলীসহ আরো অনেকে জানান, আমরা নদী ভাঙন ও বন্যা কবলিত এলাকার মানুষ। বন্যার পানি ঢুকে জমিগুলোতে বালি ভরে দেয়ায় জমিগুলো ধান চাষে
অনুপযোগী হয়। ধান চাষের অনুপযোগী জমিতে এখন ভুট্টা চাষ করছি। ধানের চেয়ে অল্প পরিশ্রম ও অল্প খরচে ভুট্টা চাষ করে লাভবান হচ্ছি।

ইসলামপুর উপজেলা কৃষি অফিসার মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন জানান, বিভিন্ন মাঠ ঘুরে দেখছি, এবার ভুট্টা ইসলামপুরের যমুনা নদ বেষ্টিত চরাঞ্চলে ভুট্টার বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। আশা করি ভুট্টা চাষে কৃষক আরো অনেক বেশি আগ্রহী হবে।

জামালপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. আমিনুল ইসলাম জানান, আগের চেয়ে বর্তমান ভুট্টা চাষে বেশি আগ্রহ হচ্ছে কৃষকরা। জেলার বিভিন্ন উপজেলায় এবার পাঁচ হাজার ৩৫৫ হেক্টর জমিতে ভুট্টা চাষ করা হয়েছে। ভুট্টা চাষে লাভ ভালো হওয়ায় ভুট্টা চাষে ঝুঁকছে কৃষক।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।