৬ই এপ্রিল, ২০২০ ইং, সোমবার
১৩ই শাবান, ১৪৪১ হিজরী

জাতি-ধর্ম ভুলে একে অপরকে সাহায্য করার আহ্ববান শোয়েব আখতারের

প্রকাশিত: ১:৫১ অপরাহ্ণ , মার্চ ২৪, ২০২০

জাতি-ধর্ম ভুলে একে অপরকে সাহায্য করার আহ্ববান শোয়েব আখতারের

 

স্পোর্টস ডেস্কঃ মহামারি করোনায় কাঁপছে পুরোবিশ্ব। করোনায় বিপর্যস্ত মানুষের জীবণ। কয়েক লক্ষ মানুষ আক্রান্ত হয়েছে এই ভাইরাসে তাই করোনা প্রতিরোধে জাতি-ধর্ম ভুলে সবাইকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে আহ্বান জানিয়েছেন পাকিস্তানের সাবেক স্পিডস্টার শোয়েব আখতার।

এক ইউটিউব বার্তায় ভক্ত-সমর্থকদের প্রতি আহ্ববান জানিয়ে পাকিস্তানি এই পেসার বলেন, ‘আমার সকল অনুরাগীদের কাছে অনুরোধ করোনা ভাইরাস গোটা বিশ্বের সংকট। সুতরাং জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে আমাদের সেভাবেই বিষয়টাকে ভাবতে হবে। বিভিন্ন দেশ বিভিন্ন শহর লকডাউন হচ্ছে। কারণ ভাইরাস যাতে ছড়িয়ে না পড়তে পারে; কিন্তু তোমরা যদি প্রকাশ্যে দেখা-সাক্ষাৎ করতে থাকো তাহলে উদ্দেশ্যটা সফল হবে না।’

সবার প্রতি অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এমন সংকটের সময় দিনে আনা দিনে খাওয়া মানুষের কথা মাথায় রাখুন। দোকান-পাটে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য পাওয়া যাচ্ছে না। আপনি যে তিনমাস পর বেঁচে থাকবেন তার নিশ্চয়তা কী আছে? তাই গরিব মানুষের কথাও ভাবুন। তারা তাদের পরিবারের মুখে কীভাবে অন্ন তুলে দেবে। মানুষ হয়ে মানুষের কথা ভাবার সময় এসে গেছে। মুসলিম-হিন্দু ঊর্ধ্বে উঠে একে অপরকে সাহায্য করতে হবে। নিত্যপণ্য সংগ্রহ করুন, মজুত নয়।’

সেসঙ্গে কঠিন সময় নিজেদের ওপর আস্থা রাখতে বলেছেন আখতার। তার কথায়, ‘আমরা পশুর মত আচরণ করছি। মানুষের মতো বাঁচতে শিখুন। দয়া করে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস মজুত করবেন না। আমাদের মানুষের মতো বাঁচতে হবে।’

ভগ্নপ্রায় চিকিৎসা ব্যবস্থা নিয়ে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে এক অসম লড়াই চালাচ্ছে পাকিস্তান। পৃথিবীর অন্যতম জনবসতিপূর্ণ দেশ পাকিস্তানে ইতিমধ্যেই করোনায় আক্রান্ত ৮৭৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ৬ জনের। দক্ষিণ এশিয়ার দেশ হিসেবে প্রায় ২১ কোটি জনবসতিপূর্ণ পাকিস্তানে এখন আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। চিন এবং ইরানের সীমান্তে অবস্থিত হওয়ায় উদ্বেগ আরও বাড়ছে তাদের।

সংখ্যাটা যাতে খুব বেশি না বাড়ে, ঠিক সে কারণেই উৎকণ্ঠার মধ্যে সাধারণ মানুষের কাছে আবেগঘন বার্তাটা দিলেন শোয়েব আখতার। একইসঙ্গে প্রতিবেশি দেশ ভারতকে নিয়েও উদ্বিগ্ন ‘রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস’। ভারতে সোমবারও করোনার শিকার হয়েছেন ১ জন, মোট ৫০৪। মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ১০।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।