সোমবার, ২৫শে মে, ২০২০ ইং

ঘরের যেসব জিনিসে রয়েছে করোনার ঝুঁকি

প্রকাশিত: ৪:৫৮ অপরাহ্ণ , মার্চ ২৪, ২০২০

ঘরের যেসব জিনিসে রয়েছে করোনার ঝুঁকি

সিএনআই ডেস্কঃ বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া মহামারি করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) সকাল পর্যন্ত এক দিনে ১ হাজার ৮৭৭ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এতে মোট মৃতের সংখ্যা ১৬ হাজার ৫২৪ জনে পৌঁছেছে। আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১ লাখ ২ হাজার ৪২৩ জন।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা জানিয়েছে, উৎপত্তিস্থল চীন ছাড়াও বিশ্বের মোট ১৯৫টি দেশে মরণঘাতী ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়েছে। তাছাড়া ঝুঁকিতে আছে আরও অনেক দেশ। এতে বিশ্বজুড়ে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৩ লাখ ৭৯ হাজার ছাড়িয়েছে। যাদের মধ্যে ইতালি, ইরান ও দক্ষিণ কোরিয়ার নাগরিকদের সংখ্যাই সবচেয়ে বেশি। এমন অবস্থায় বিশ্বজুড়ে সতর্কতা জারি করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

প্রাণঘাতী এই ভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। গবেষণায় দেখা গেছে, এই ভাইরাসটি শক্ত কিছুর ওপর বেশ কয়েক ঘণ্টা বেঁচে থাকতে পারে। অর্থাৎ, আপনার ঘরের প্রতিদিনের ব্যবহার্য জিনিসপত্র, মেঝে ও আসবাবের উপরিতলে অবস্থান করতে পারে এটি।

ঘরবাড়ি যতটা সম্ভব কম ঝুঁকিপূর্ণ নিশ্চিত করতে যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র (সিডিসি) ঘরের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ স্থানের তালিকা তৈরি করেছে। তারা যেসব স্থান জীবাণুমুক্ত রাখার পরামর্শ দিয়েছেন সেগুলো হলো-

* কিচেন কাউন্টার টপস
* টেবিল
* দরজার হাতল
* বাথরুমের ফিক্সচার
* টয়লেট
* ফোন
* কি-বোর্ড
* ট্যাবলেট পিসি
* টেবিলের আশপাশে
* যেখানে রক্ত, মল বা ঘাম লেগে থাকতে পারে এমন স্থান

সুরক্ষিত থাকবেন যেভাবে 

সিডিসির পক্ষ থেকে, ঘরের সব জিনিসপত্র নিয়মিত জীবাণুনাশক স্প্রের সাহায্যে পরিষ্কার করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এ সময় গ্লাভস পরা ও ঘরের বায়ু চলাচল নিশ্চিত করতেও বলা হয়েছে।

নিজের কোনো জিনিস পরিবারের অন্যদের সঙ্গে শেয়ার না করাই উচিত হবে। বিশেষ করে বাসন, গ্লাস, কাপ, চশমা, তোয়ালে ও বিছানা ইত্যাদি আলাদা রাখুন।

করোনা মোকাবিলায় সচেতন হোন।

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া মহামারি করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) সকাল পর্যন্ত এক দিনে ১ হাজার ৮৭৭ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এতে মোট মৃতের সংখ্যা ১৬ হাজার ৫২৪ জনে পৌঁছেছে। আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১ লাখ ২ হাজার ৪২৩ জন।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা জানিয়েছে, উৎপত্তিস্থল চীন ছাড়াও বিশ্বের মোট ১৯৫টি দেশে মরণঘাতী ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়েছে। তাছাড়া ঝুঁকিতে আছে আরও অনেক দেশ। এতে বিশ্বজুড়ে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৩ লাখ ৭৯ হাজার ছাড়িয়েছে। যাদের মধ্যে ইতালি, ইরান ও দক্ষিণ কোরিয়ার নাগরিকদের সংখ্যাই সবচেয়ে বেশি। এমন অবস্থায় বিশ্বজুড়ে সতর্কতা জারি করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

প্রাণঘাতী এই ভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। গবেষণায় দেখা গেছে, এই ভাইরাসটি শক্ত কিছুর ওপর বেশ কয়েক ঘণ্টা বেঁচে থাকতে পারে। অর্থাৎ, আপনার ঘরের প্রতিদিনের ব্যবহার্য জিনিসপত্র, মেঝে ও আসবাবের উপরিতলে অবস্থান করতে পারে এটি।

ঘরবাড়ি যতটা সম্ভব কম ঝুঁকিপূর্ণ নিশ্চিত করতে যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র (সিডিসি) ঘরের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ স্থানের তালিকা তৈরি করেছে। তারা যেসব স্থান জীবাণুমুক্ত রাখার পরামর্শ দিয়েছেন সেগুলো হলো-

* কিচেন কাউন্টার টপস
* টেবিল
* দরজার হাতল
* বাথরুমের ফিক্সচার
* টয়লেট
* ফোন
* কি-বোর্ড
* ট্যাবলেট পিসি
* টেবিলের আশপাশে
* যেখানে রক্ত, মল বা ঘাম লেগে থাকতে পারে এমন স্থান

সুরক্ষিত থাকবেন যেভাবে 

সিডিসির পক্ষ থেকে, ঘরের সব জিনিসপত্র নিয়মিত জীবাণুনাশক স্প্রের সাহায্যে পরিষ্কার করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এ সময় গ্লাভস পরা ও ঘরের বায়ু চলাচল নিশ্চিত করতেও বলা হয়েছে।

নিজের কোনো জিনিস পরিবারের অন্যদের সঙ্গে শেয়ার না করাই উচিত হবে। বিশেষ করে বাসন, গ্লাস, কাপ, চশমা, তোয়ালে ও বিছানা ইত্যাদি আলাদা রাখুন।

করোনা মোকাবিলায় সচেতন হোন।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।