মঙ্গলবার, ২৬শে মে, ২০২০ ইং

টেকনাফে রোহিঙ্গা ইয়াবা কারবারী নিহত : দুই লাখ ৪০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার

প্রকাশিত: ১০:৪৭ পূর্বাহ্ণ , মে ১৭, ২০২০

টেকনাফে রোহিঙ্গা ইয়াবা কারবারী নিহত : দুই লাখ ৪০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার

কক্সবাজার প্রতিনিধিঃ  টেকনাফে বিজিবি ও পাচারকারীদের মধ্যে বন্দুক যুদ্ধে সাকের (২২) এক রোহিঙ্গা যুবক নিহত হয়েছে। সে উখিয়া উপজেলার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা খায়রুল আমিনের ছেলে। ১৭ মে ভোর সোয়া ৪ টার সময় টেকনাফের নয়াপাড়া লবন মাঠে এ ঘটনা ঘটে। এসময় ঘটনাস্থল তল্লাশি করে ২ লাখ ৪০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, একটি এলজি, দুটি কার্তুজের খালি খোসা ও একটি লম্বা কিরিচ উদ্ধার করা হয়। এতে বিজিবি দু সদস্য আহত হয়।

জানা যায়, ১৭ মে (রবিবার) ভোরের দিকে টেকনাফ ২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের নয়াপাড়া বিওপির বিশেষ টহল দল মাদকের চালান আসার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মোচনী ও নয়াপাড়া লবনের মাঠে কৌশলী অবস্থান নেন। কিছুক্ষণ পর উক্ত পয়েন্ট দিয়ে ৩/৪ লোক বস্তা নিয়ে আসতে দেখে দাড়ানোর জন্য চ্যালেঞ্জ করলে মাদক কারবারী চক্রের সদস্যরা বিজিবিকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে। এতে বিজিবির দুই সদস্য আহত হয়। পরে বিজিবিও আত্নরক্ষার্থে পাল্টা গুলিবর্ষণ করলে মাদক কারবারী চক্রের সদস্যরা পালিয়ে যায়।
তারপর ঘটনাস্থল তল্লাশি করে ২ লাখ ৪০হাজার ইয়াবা, ১টি ধারালো কিরিচ, ১টি দেশীয় আগ্নেয়াস্ত্র ও ২ রাউন্ড কার্তুজসহ গুলিবিদ্ধ অবস্থায় বালুখালী ৯নং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ব্লক-এইচ/৬ এর বাসিন্দা খাইরুল আমিনের পুত্র মোঃ সাকের (২২) কে উদ্ধার করে।

গুলিবিদ্ধ মাদক কারবারীকে টেকনাফ উপজেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়। পরে কক্সবাজার জেলা সদরে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মৃতদেহ উদ্ধার করে পোস্টমর্টেমের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এদিকে আহত
বিজিবি জওয়ানদের টেকনাফ কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়। টেকনাফ ২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খান (পিএসসি) মাদক বিরোধী অভিযানের সত্যতা নিশ্চিত করেন বলেন, উক্ত বিষয়ে তদন্ত স্বাপেক্ষে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।