সোমবার, ১৩ই জুলাই, ২০২০ ইং

ধর্মপাশায় বন্যায় জনজীবন বিপর্যস্থ

প্রকাশিত: ৭:৩৩ অপরাহ্ণ , জুন ২৮, ২০২০

ধর্মপাশায় বন্যায় জনজীবন বিপর্যস্থ
ধর্মপাশা প্রতিনিধি:  চারদিন ধরে ভারী বর্ষন ও মেঘালয়  থেকে নেমে আসা সোমেশ্বরী নদীতে  পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জ জেলার  ধর্সপাশা  উপজেলায় সৃষ্ট বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। বন্যায় নতুন নতুন এলাকাগুলো প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন প্রায় লক্ষাধিক মানুষ।
বৈশ্বিক মহামারী করোনার  মধ্যে এ বন্যা যেন মরার ওপর খারার ঘা হয়ে এসেছে। ধর্মপাশা উপজেলার বংশীকুন্ডা (উঃ), বংশীকুন্ডা (দঃ),চামরদানী ও মধ্যনগর ইউনিয়নের সবগুলো গ্রাম প্লাবিত হওয়ায় মানুষ পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।  এই দিকে মধ্যরগর মহিষখলা -মধ্যনগর রোড পানির নিচে ডোবে যাওয়ায় মধ্যনগর ও  ধর্মপাশা উপজেলা  সদরের সাথে যোগাযোগ বিছিন্ন হয়ে পড়েছে।
কোম্পানীগঞ্জ : জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে বন্যার পানি ঢুকে পড়েছে। এর ফলে উপজেলার প্রায় সব কয়টি গ্রামীণ সড়ক ও বাজারে পানিতে তলিয়ে গেছে। পাশাপাশি উপজেলার সাথে সবগুলো ইউনিয়নের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।
বন্যাকবলিত বিভিন্ন এলাকা গতকাল পরিদর্শন করেছেন সুনামগঞ্জ -১ আসনের সংসদ সদস্য  ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন। তার ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে  আর্থিক সহযোগিতাও দিচ্ছেন বন্যার্তদের মধ্যে।
আর বন্যা পরিস্থিতি  মোকাবেলায় সুনামগঞ্জ  জেলা প্রশাসনও প্রস্তুত রয়েছে।
মধ্যনগর থানার ৪ টি ইউনিয়নের করোনাকালের এই বন্যা পরিস্থিতিতে মানুষ মানবেতর জীবনযাপন করছে প্রায় লক্ষাধিক মানুষ।
বন্যাকবলিত মানুষেরা জানান, পাহাড়ী ঢলে সোমেশ্বরী নদীর পানি  বৃদ্ধি পেয়ে আমরা বন্যায় গৃহবন্দী হয়ে পড়েছি।আমাদের অনেকেরই রান্না -খাওয়া বন্ধ হয়ে পড়েছে।যার ফলে আমরা অনাহারে -অর্ধাহারে দিনযাপন করছি।তাই আমরা সরকারের সহযোগিতা  কামনা করছি।
ধর্মপাশা উপজেলা  নির্বাহী কর্মকর্তা মুনতাসীর হাসান জানান, ধর্মপাশা উপজেলায় বন্যার্তদের পাশে আমরা সবসময়  আছি।বন্যা কবলিত এলাকায় যারা পানিবন্দি হয়ে পড়েছে  তাদের জন্য আমরা উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঐ এলাকার স্থানীয় স্কুলগুলোতে আশ্রয় কেন্দ্রের ব্যাবস্থা করে দেব। উপজেলা  দুর্যোগ ব্যাবস্থপনা কমিটির জরুরি সভার আহবান করা হয়েছে। সভা শেষে আমরা প্রত্যেকটি বন্যার্ত পরিবারের মধ্য সরকারী  ত্রান ও সার্বিক সহযোগিতা পৌঁছে দেব।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।