২২, আগস্ট, ২০১৯, বৃহস্পতিবার | | ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

অনলাইনে গবাদিপশু কেনাবেচার জনপ্রিয়তা বাড়ছে

প্রকাশিত: ৬:৩৩ অপরাহ্ণ , আগস্ট ১, ২০১৯

অনলাইনে গবাদিপশু কেনাবেচার জনপ্রিয়তা বাড়ছে

কোরবানির আগের এ সময়ে হাটে-ঘাটে-মাঠে থাকে যানজট আর জনজট দালালদের খপ্পর, ছিনতাইয়ের ভয়, জাল টাকা ইত্যাদি নানা ঝক্কি ঝামেলা। এসব ঝক্কি এড়াতে দেশে এবং দেশের বাইরে থেকেও ক্রেতারা ভিড় করছেন ভার্চুয়াল কোরবানির হাটে।পশু কেনা ও জবাই করার মধ্য দিয়ে কোরবানি সম্পন্ন করার এ কাজকে এখন আরও সহজ করেছে প্রযুক্তি। প্রতিবারের মতো এ বছরও অনলাইনেই বসছে বিভিন্ন কোরবানির হাট। এখন শুধু গরু নয়, অনলাইনে মিলছে কসাইও।

বিক্রয় ও মিনিস্টারের ‘বিরাট হাট’

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় মার্কেটপ্লেস ও অনলাইনে গবাদিপশু কেনাবেচার জনপ্রিয় মাধ্যম বিক্রয় ডটকম এবং মিনিস্টার হাইটেক পার্ক লিমিটেড এবারের ঈদুল আজহা উপলক্ষে তৃতীয়বারের মতো নিয়ে এসেছে কোরবানি ক্যাম্পেইন- ‘বিক্রয় বিরাট হাট পাওয়ার্ড বাই মিনিস্টার’।২২ জুলাই থেকে শুরু হওয়া এ ক্যাম্পেইন চলবে ঈদের আগের রাত পর্যন্ত। প্রতিবছরের মতো এ ঈদুল আজহায়ও বিক্রয় তার সম্মানিত গ্রাহকদের জন্য নিয়ে এসেছে চমৎকার সব গবাদিপশুর সমাহার। এরই মধ্যে বিক্রয়ের সাইটে ১০০০-এরও বেশি কোরবানির পশুর বিজ্ঞাপন পোস্ট করা হয়েছে।এ বছর বিক্রয় গ্রাহক ও মেম্বার উভয় পক্ষের জন্যই আয়োজন করেছে বিরাট হাট কন্টেস্টের। প্রতিযোগীরা এ অনলাইন কন্টেস্টে অংশ নিয়ে পাবেন মিনিস্টার হাইটেক পার্ক লিমিটেডের পক্ষ থেকে সর্বমোট ৬ লাখ মূল্যমানের আকর্ষণীয় হোম অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্স অ্যাপ্লায়েন্স জিতে নেয়ার অনন্য সুযোগ।বিক্রয় ডটকমের হেড অব মার্কেটিং, অ্যাড সেলস অ্যান্ড জবস ঈশিতা শারমিন বলেন, ‘বিক্রয় হচ্ছে অনলাইনে কোরবানির পশু বেচাকেনার অগ্রদূত। গত পাঁচ বছর ধরে ঈদুল আজহা উপলক্ষে বিক্রয় কোরবানি পশুর পসরা নিয়ে আসছে।বিগত বছরগুলোতে ঈদুল আজহায় আমরা গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রচুর সাড়া পেয়েছি। এ বছর আমরা গ্রাহকদের জন্য আরও বেশিসংখ্যক কোরবানির পশু নিয়ে এসেছি। প্রতি বছর গ্রাহক চাহিদা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি হয়ে থাকে, আর আমরাও সেই অনুযায়ী আমাদের সেবার মান উন্নত করতে সচেষ্ট থাকি। গ্রাহক ছাড়াও আমাদের প্লাটফর্ম থেকে হাজার হাজার বিক্রেতা উপকৃত হয়ে থাকে। আর ঈদের আনন্দকে দ্বিগুণ করতে বিরাট হাট কন্টেস্ট তো রয়েছেই’।মিনিস্টার হাইটেক পার্ক লিমিটেডের হেড অব ব্র্যান্ড অ্যান্ড কমিউনিকেশনস কেএমজি কিবরিয়া বলেন, ‘দারুণ এ আয়োজনের সঙ্গে থাকতে পারা আমাদের জন্য আনন্দের বিষয়।বিরাট হাটের মাধ্যমে ক্রেতারা কোনো ঝামেলা ছাড়াই নিরাপদ কোরবানির পশু ক্রয়ের সুযোগ পাচ্ছেন। একইসঙ্গে সৌভাগ্যবান ক্রেতারা মিনিস্টারের দারুণ সব পণ্য জিতে নিতে পারবেন, যা ঈদের খুশিকে আরও বাড়িয়ে তুলবে’।

বেঙ্গল মিট অনলাইন কোরবানির হাট

নিরাপদ ও পরিচ্ছন্ন কোরবানির অঙ্গীকার নিয়ে বেঙ্গল মিট টানা পঞ্চমবারের মতো আয়োজন করল অনলাইন কোরবানির হাট qurbani.bengalmeat.com. এই অনলাইন হাট থেকে গ্রাহকরা ক্রয় করতে পারবেন সম্পূর্ণ স্টেরয়েড-ফ্রি ও রোগমুক্ত কোরবানির পশু।কোরবানির পশু কেনার পাশাপাশি গ্রাহকরা আরও পাচ্ছেন ‘পরিপূর্ণ কোরবানি সেবার’ মাধ্যমে বিশ্বমানের নিরাপদ খাদ্য নীতিমালা অনুযায়ী মাংস প্রসেসিং ও হোম ডেলিভারির সুবিধা। এ অনলাইন সাইটটি একটি সাধারণ শপিং সাইটের মতোই কাজ করে যার ফলে ক্রেতারা এ ওয়েবসাইটটি অপারেট করতে পারবে সাবলীলায় ও সহজে।ভার্চুয়াল প্লাটফর্ম হওয়ায় এ ওয়েবসাইটে কোরবানির পশুবিষয়ক প্রয়োজনীয় সব তথ্য পাওয়া যাবে। ল্যান্ডিং পেজটিতে ক্রেতারা কোরবানির পশু বাছাইয়ের পাশাপাশি পাবেন পশু ক্রয়ের সহজ নিয়মাবলি।সাধারণত কোরবানির হাটে নিজে গিয়ে পর্যবেক্ষণ করে কোরবানির পশু ক্রয় করাই বর্তমানে অনেকটা চ্যালেঞ্জিং। এ অসুবিধা সমাধান করতে সাইটে আছে পশুর সর্বাধিক তথ্য। আছে পশুর জাত, বয়স ও ওজনসংক্রান্ত সব প্রয়োজনীয় তথ্য, এর পাশাপাশি থাকছে খাদ্য তালিকা ও স্বাস্থ্য পরীক্ষাসংবলিত বিস্তারিত তথ্যগুলো।ক্লাসিফায়েড অনলাইন ও ই-কমার্স সাইটগুলোর পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও বিভিন্ন গ্রুপ এবং পেজ খুলে চলছে কোরবানির পশু বিক্রি। সারা বছর অনেকটা ঘাপটি মেরে থাকলেও ঈদুল আজহার আগে গ্রুপগুলো চাঙ্গা হয়ে উঠে।সারা দিনই কেউ না কেউ পোস্ট দিচ্ছেন পশু কেনাবেচার। এসব গ্রুপের মাধ্যমেই উঠে আসছে তরুণ অনেক উদ্যোক্তার এগিয়ে যাওয়ার গল্প । যারা গরু, ছাগল পালন করে নিজের পাশাপাশি সৃষ্টি করেছেন অন্য কর্মসংস্থানও।

রুপাসদি গ্রীন অ্যাগ্রো

নাসিম বর্ণ বিদেশে পড়াশোনা করেও দেশের টানে ফিরে এসে নিজ গ্রামে ছোটবেলার বন্ধুদের নিয়ে শুরু করছেন রুপাসদি গ্রীন এগ্রো ফার্ম। তিনি বলেন, আমাদের গ্রামে আমি এসে যখন খামার শুরু করি অনেকেই হাসাহাসি করেছিল, বিদেশে পড়াশোনা করে দেশে এসেছে গরু পালন করতে, রাখাল হবে, এসব বলে তুচ্ছতাছিল্য করত।অথচ মাত্র এক বছরের ব্যবধানে এখন সে গ্রামেই ৬টি খামার গড়ে উঠেছে। অনেকেই এখন আমাদের কাছে আসে মডার্ন ফার্মিংয়ের তথ্য নিতে।বর্ণ আরও বলেন, চারদিকে খাবারে ভেজাল দেখতে দেখতে অতিষ্ঠ; আমাদের মূল লক্ষ্যে ভেজালমুক্ত সম্পূর্ণ অর্গানিক পশু প্রস্তুত করা। এতে হয়তো আমাদের ব্যবসায় লাভ কম হবে, তবুও মানুষ যেন ভালো পশুটি কোরবানি দেয়।কোরবানি উপলক্ষে তাদের খামারে রয়েছে প্রায় ২০টির মতো সম্পূর্ণ দেশি গরু। দেশি ঘাস এবং সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক খাবারের মাধ্যমে এক বছর ধরে এ পশুগুলোকে কোরবানির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। অনলাইনে রুপাসদি গ্রীন এগ্রোর তথ্য পেতে : https://www.facebook.com/rupasdi.greenagro

গরু ছাগলের বিরাট হাট

ফেসবুকে একটি জনপ্রিয় গ্রুপ ‘গরু ছাগলের বিরাট হাট’ Goru Chagol Er Birat Haat !!GCBH)’। ৩০ হাজারের বেশি সদস্যের এ গ্রুপটি ঈদ আসার বেশ কয়েক দিন আগে থেকেই হয়ে উঠেছে। অনেকে খামারি এবং সাধারণ ক্রেতা-বিক্রেতারাও পোস্ট করছেন কোরবানির পশু এবং কোরবানিসংক্রান্ত নানা তথ্য।অনেক বিক্রেতা নিজেদের গবাদিপশুটি বিক্রির জন্য পোস্ট করে থাকেন এ গ্রুপটিতে। তেমনি একজন বিক্রেতা শওকত আলি তার নিজের দুটি ষাঁড়ের ছবি পোস্ট করেছেন ‘গরু ছাগলের বিরাট হাট’ গ্রুপে।সেই পোস্টে অনেকেই জানতে চেয়েছেন দাম সম্পর্কে এবং বিস্তারিত। আর কমেন্টে সেসব প্রশ্নের উত্তরও দিয়েছেন শওকত আলি। দাম-দর বনিবনা হলে হয়তো গ্রুপের মাধ্যমেই তার গরুগুলো বিক্রি হয়ে যাবে।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।