২২, আগস্ট, ২০১৯, বৃহস্পতিবার | | ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

বেতন বঞ্চিত হলেন কয়েক লাখ শিক্ষক

প্রকাশিত: ২:৩৬ অপরাহ্ণ , আগস্ট ২, ২০১৯

বেতন বঞ্চিত হলেন কয়েক লাখ শিক্ষক

মাসের প্রথমদিন বেতন থেকে বঞ্চিত হলেন ভারতের কয়েক লাখ শিক্ষক। বৃহস্পতিবার আগস্ট রাত পেরিয়ে গেলেও এখনও পর্যন্ত মধ্যমমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষকরা বেতন পাননি বলে অভিযোগ। বেতন না পেয়ে চূড়ান্ত সমস্যায় পড়েছেন শিক্ষকদের একাংশ। সরকারি স্কুলে বেতন ঢুকে গেলেও সরকারি স্পনসর স্কুলে দেখা গিয়েছে বেতন বিপত্তি। কবে বেতন মিলবে, তা নিয়েও তুঙ্গে ধোঁয়াশা।

রাজ্যের মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক স্তরে শিক্ষকদের বেতন নিয়ে আগেই অনিশ্চয়তা তৈরি হয়। সূত্রের খবর, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে শিক্ষা দপ্তরের তরফে মঞ্জুরি না আসায় বেতন বিভ্রাটে পড়েন শিক্ষকদের একাংশ। তৃণমূল সরকার ক্ষমতায় আসার পর মাস পয়লা বেতন দেওয়ার পদ্ধতি শুরু করে রাজ্য সরকার। ২০১৪ সাল থেকে মাসপয়লা তারিখে ব্যাংক অ্যাকাউন্টে টাকা ঢুকে যায়। অর্থবর্ষ শেষ হওয়ার কারণে মার্চ মাসের বেতন পেতে কয়েক দিন দেরি হয় বটে। কিন্তু জুলাই মাসের বেতন পেতে কেন এত দেরি? হঠাৎ কেন মাস পয়লা বেতন থেকে বঞ্চনার শিকার হতে হল শিক্ষকদের? প্রশ্ন তুলছেন শিক্ষকদের একাংশ। বৃহস্পতিবার রাত পেরিয়ে গেলেও বেতনের এসএমএস না পেয়ে বেশ চিন্তিত রাজ্যের কয়েক লাখ শিক্ষক। জানা গিয়েছে, বাংলার একাধিক জেলার শিক্ষকরা এই বেতন বিভ্রাটে পড়েছে।

কেননা অ্যাকাউন্টে বেতন পড়লেই ঋণ বাবদ বা অন্যান্য খাতে ব্যাংক টাকা কাটে থাকে। কিন্তু এক তারিখ পেরিয়ে গেলেও বেতন না ঢোকায় কার্যত ঋণখেলাপির মতো সমস্যায় পড়েছেন চলেছেন শিক্ষকদের একাংশ। তবে কেন এই জটিলতা সেই নিয়ে রয়েছে চূড়ান্ত ধোঁয়াশা। আজ (শুক্রবার) যদি বেতন না ঢোকে তাহলে সমস্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা শিক্ষকদের। শিক্ষকদের আশঙ্কা, নতুন ব্যবস্থায় অর্থদপ্তরের সঙ্গে ট্রেজারির পোর্টালের সংযোগে সমস্যা হচ্ছে৷ ফলে, অর্থ দপ্তর অনুমোদন দিতে পারেনি পারছিল না। তবে, দ্রুত সমস্যা মিটেছে। শুক্রবার বেতন ঢুকে যাবে বলে খবর পাওয়া গেছে।

সূত্রঃ বাংলাদেশ জার্নাল।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।