২৪, আগস্ট, ২০১৯, শনিবার | | ২২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

বৃষ্টিতে বিঘ্ন: জমে ওঠেনি পশুর হাট

প্রকাশিত: ৯:৩৩ অপরাহ্ণ , আগস্ট ৮, ২০১৯

বৃষ্টিতে বিঘ্ন: জমে ওঠেনি পশুর হাট

পবিত্র ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে বসেছে কোরবানির পশুর হাট। তবে বেচাকেনা শুরু হলেও থেমে থেমে বৃষ্টি এবং ঈদের আরও ৩ দিন বাকী থাকায় এখনও জমে ওঠেনি পশুর হাট।

শুক্রবার (৯ আগস্ট) ছুটির দিন থেকে পুরোদমে পশু বিক্রি জমে উঠবে এবং চাঁদ রাত পর্যন্ত এই কেনা-বেচা চলবে বলে আশা করছেন বিক্রেতা এবং ক্রেতারা।

রাজধানীর উত্তর শাহজাহানপুর খিলগাঁও রেলগেট বাজারের মৈত্রী সংঘের মাঠ সংলগ্ন আশপাশের, কমলাপুর স্টেডিয়াম সংলগ্ন বিশ্বরোডের আশপাশের খালি জায়গা, গাবতলী পশুর হাটসহ রাজধানীর আরও কয়েকটি পশু হাটে সরেজমিনে গিয়ে বিক্রেতা-ক্রেতাদের সাথে কথা বলে এই চিত্র পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, কোরবানীর জন্য রাজধানীর হাটগুলোতে পর্যাপ্ত দেশীয় গরু-ছাগল বা পশু রয়েছে। বুধবার রাত থেকে থেমে থেমে বৃষ্টির কারণে পশু হাটগুলোতে আজ (বৃহস্পতিাবর) ক্রেতার উপস্থিতি কম হওয়ায় বেচা-বিক্রির পরিমাণও কম।

একজন গরু বিক্রেতা নাজমুল সরকার বলেন, ক্রেতাদের অনেকেই বৃষ্টিতে ভিজে পশু বাজারে এসেছেন। আর ক্রেতা যারা আসছেন তারা দর-দাম জিজ্ঞেস করে চলে যাচ্ছেন।

উত্তর শাহজাহানপুর পশুর হাটে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, চুয়াডাঙ্গা থেকে লাল্টু হোসেন নামের একজন ছাগল ব্যবসায়ি একটি ট্রাকে করে মোট ৯১টি ছাগল নিয়ে এসেছেন। এই ছাগলগুলোর মধ্যে বিভিন্ন দামের অর্থাৎ ২০ হাজার, ২৫ হাজার ও ৩০ হাজার টাকা মূল্যের ছাগল রয়েছে।

কমলাপুর স্টেডিয়াম সংলগ্ন বিশ্বরোডের আশপাশের খালি জায়গা স্থাপিত হাটের একজন পশু বিক্রেতা নাছির উদ্দিন বলেন, আশা করছি আগামীকাল ছুটির দিন শুক্রবার থেকে পুরোদমে পশু বিক্রি জমে উঠবে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, বেশি দাম পাওয়ার আশায় ব্যবসায়ী ও খামারিরা দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে রাজধানীতে গরু নিয়ে আসেন। এরমধ্যে কুড়িগ্রাম, জামালপুর, জয়পুরহাট, কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, মাদারীপুর, রাজবাড়ী, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, সাতক্ষীরা, যশোর, সুনামগঞ্জ, নীলফামারী, রংপুর, দিনাজপুরসহ বিভিন্ন জেলা থেকে গরু-ছাগল নিয়ে আসা হয়েছে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, আসন্ন ঈদ-উল আযহা উপলক্ষে সারাদেশে এ বছর ২ হাজার ৩৬২টি কোরবানি পশুর হাট বসবে। এর মধ্যে রাজধানীর দুই সিটি কর্পোরেশনে বসেছে ২৪টি।

এছাড়া ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের আওতায় ২৩টি অস্থায়ী ও একটি স্থায়ী পশুরহাট বসেছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। এই হাটগুলোর মধ্যে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) ১০টি এবং দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) ১৪টি হাট রয়েছে।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।