১৬, অক্টোবর, ২০১৯, বুধবার | | ১৬ সফর ১৪৪১

এক পুঁচকে চাবাকুর মন খারাপের গল্প (ভিডিও)

প্রকাশিত: ৯:০৩ অপরাহ্ণ , অক্টোবর ২, ২০১৯

এক পুঁচকে চাবাকুর মন খারাপের গল্প (ভিডিও)

চাবাকুর খুব মন খারাপ।

কেন মন খারাপ?

ওর সাথে কেউ খেলছে না তাই।

আহা রে, কেন খেলছে না?

ওই যে অসুস্থ হওয়ার পর সাথীদের থেকে দূরে ছিল।

ও মা তাই কী হয়!

অসুস্থ হলে চিকিৎসা নিতে হবে না?

হবে তো। কিন্তু ও যে মানুষের কাছে চিকিৎসা নিয়েছে, খেয়েছে, ঘুমিয়েছে। তাই ওকে একঘরে করে দিয়েছে দলনেতা। কাছেই ঘেষতে দিচ্ছে না। দলনেতার কথা মেনে কেউ ওর সাথে খেলছে না। তাই ওর খুউব মন খারাপ।

ওহ, নিশ্চিয় প্রশ্ন জাগছে, এই চাবাকুটা কে?

ও একটা পুঁচকে হাতি। কীভাবে যেন পাঁচ মাস আগে থাইল্যান্ডের বুয়েং কানের একটি খাদে একা আটকে পড়েছিল। বন্যপ্রাণীর কর্মকর্তরা তাকে উদ্ধার করে। লালন-পালন করে। যখন চাবাকু পুরোপুরি সুস্থ হয়ে যায় তখন তারা পুঁচকেটাকে তার দলের সাথে রেখে আসার চিন্তা করে।

কিন্তু তখন অনেক দেড়ি হয়ে গেছে। চাবাকু আর আগের মতো নেই। শুধু চাবাকু নয়, কেউ আর আগের মতো নেই।

চাবাকু আর দলের সাথে মিশতে পারে না। আর দলও তাকে আপন করে নেয় না। তাই মন খারাপ করে অজানায় পাড়ি জমায় চাবাকু।

কর্মকর্তারা ওকে চোখে চোখেই রেখেছিল। কয়েক মাইল দুর থেকে তাকে আবার নিয়ে আসে তারা।

তারপর ওর লালন-পালনের দায়িত্ব দেয়া হয় আগের পশুপালককে। যে কিনা তাকে পরম আদরে আগলে রাখত। কিন্তু সেও কেন জানি চাবাকুকে আদর করছে না। কোলে বসতে দিচ্ছে না। কিন্তু চাবাকুও নাছোরবান্দা। দল থেকে বিতাড়িত হয়ে আর দলে ফিরতে চায় না। তাই যে তাকে আদর করে আগলে রাখে তার কোলেই আহলাদ করে শুয়ে পড়ে। আর তার মানব অভিবাবকটিও তাকে পরম আদরে বুকে টেনে নেয়।

হাতি বিশেষজ্ঞ পিচেট নন্টো পুরো বিষয়টির ব্যাখ্যা দিয়েছেন। বলেছেন, ‘খুব ছোট্টবেলায় দল থেকে সরে যাওয়ায় আর সেখানে খাপ-খাওয়াতে পারছে না চাবাকু। অন্যদিকে দলও তাকে মেনে নিচ্ছে না দীর্ঘ সময় বাইরে থাকয়। সিদ্ধান্ত নিয়েছি, আমরাও ওকে আর জোর করে সেখানে পাঠাবো না।’

দেখুন ভিডিওতে-

– ডেইলি মিরর


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।