২০, অক্টোবর, ২০১৯, রোববার | | ২০ সফর ১৪৪১

পটুয়াখালীর ফকির সোবাহানের ভন্ডামি ফাঁস

প্রকাশিত: ৮:০৮ অপরাহ্ণ , অক্টোবর ৮, ২০১৯

পটুয়াখালীর ফকির সোবাহানের ভন্ডামি ফাঁস

পটুয়াখালী প্রতিনিধি: পটুয়াখালী পৌরসভাধীন পুরাতন ফেরীঘাট এলাকায় গাজীকালুর ভক্ত বলে দীর্ঘদিন ধরে প্রতারনার আশ্রয় নিয়ে ফকির সেজে মানুষদের ভূয়া তাবিজ ও ফু ফক্কর দিয়ে বিপুল পরিমানে টাকা হাতিয়ে নিয়ে আসছিল বলে ভূক্তভোগি ও এলকার মানুষ জানান।

ভন্ড ফকির সোবাহান কিছু দিন ধরে কয়েকজন মহিলার কাছ থেকে তাবিজ দিয়ে বিশ ত্রিশ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। কিন্তু তাবিজ গ্রহন কারি মহিলা যখন দেখলো তাদেও সমস্যা সমাধান হচ্ছে না তখন তারা তাবিজ খুলে দেখে তার ভিতর সাদা কাগজ ও পাথরের কুচা কোন সূরা কেরাত লেখা নেই। তখন তাড়া বুঝতে পারে সোবাহান একজন ভন্ড। আসলে সে কোন তদবির দিতে পারে না।

ভুক্তভোগি রোগিরা যখন তাদের টাকা ফেরত নিতে রবিবার সন্ধ্যায় ভন্ড সোবাহানের কাছে আসে তখন সোবাহান তাদেও টাকা ফেরত দিতে রাজি হয় না। তখন ভুক্তভোগিদের সাথে এক পর্যায়ে ভন্ড ফকিরের সাথে হাতাহাতি হয় এবং পরে লাকড়ি ও দা নিয়ে নিয়ে দাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয় দুই গ্রæপের মধ্যে তখন পুলিশ খবর পেয়ে ঘনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। পুলিশ ভন্ড ফকিরের ফকিরালির কিছু সরঞ্জাম জব্দ করে থানায় নিয়ে যায় এবং ফকিরকে শাসিয়ে বলে যায় ভন্ডামি বন্ধ করতে।

পরের দিন বিকেল আবার সোবাহানের বাসার সামনে ভির জমায় ভুক্তভোগি মাকসুদা, রাশিদা সহ অনেকে তাদের টাকা ফেরত পাওয়ার জন্য। তখন পুনরায় পুলিশ এবং স্থানীয় মানিক মেম্বার নামে একব্যক্তি শালিস ব্যবস্থার মাধ্যমে ভুক্তভোগিদের টাকা ফেরত দেওয়ার আশ^াস দিয়ে গন্ডগোলের মিমাংসা করেন। সোবাহান ফকির টাকা ফেরত দিতে রাজি হয়।

এঘটনা ফাঁস হওয়ার সাথে সাথে আরও একটা ঘটনা বেরিয়ে আসে সেটা হল সোবাহান ফকিরের ছেলে মোশারেফ কাজিরহাট বাজারে গাজী কালুর নামে একটি মাজার খুলে প্রতারনা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে স্থানীয় গাজী আব্দুল মালেক ও বায়জিদ শেখ বলেন, এই এলাকায় বসে সোবাহান ফকির নামে এই লোকটি ভন্ড ফকির সেজে মানুষকে প্রতারিত করে যাচ্ছে।

এ ঘটনায় সোবাহান ফকিরের সাথে কথা বললে তিনি জানান, আমি এভাবেই পাথরের কনা দিয়ে তাবিজ দিয়ে রোগী দেখে আসছি।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।