১৬, অক্টোবর, ২০১৯, বুধবার | | ১৬ সফর ১৪৪১

বিদেশিদেরও এখানে আগ্রহ নেই শেয়ারবাজারে

প্রকাশিত: ৪:৪৯ অপরাহ্ণ , অক্টোবর ৯, ২০১৯

বিদেশিদেরও এখানে আগ্রহ নেই শেয়ারবাজারে

অর্থনীতি ডেস্কঃ আস্থার সংকটে শেয়ারবাজার। এ কারণে দেশি নয়, বিদেশিদেরও এখানে আগ্রহ নেই, ফলে বিনিয়োগ অব্যাহতভাবে কমছে। অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে বিদেশি বিনিয়োগ ২৬৬ কোটি টাকার বেশি কমেছে।

এই সংকট কাটিয়ে বাজারে স্থিতিশীলতা আনার জন্য আস্থা ফেরাতে উদ্যোগ নিতে হবে। জানতে চাইলে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক অর্থ উপদেষ্টা ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, শেয়ারবাজারের মূল সমস্যা বিনিয়োগ আস্থা সংকট। এই সংকটের কারণে নতুন কোনো বিনিয়োগ আসছে না। তিনি বলেন, বিদেশি বিনিয়োগ বাজারের গভীরতা বাড়ায়। কয়েকটি বিষয় বিবেচনা করে বিদেশিরা বিনিয়োগ করে।

এর মধ্যে রয়েছে বাজারের বর্তমান অবস্থা, ভবিষ্যৎ সম্ভাবনা, দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা, আইন-কানুন এবং কারসাজির করলে তার বিচার কত দ্রুত হয় সেটি বিদেশিরা বিবেচনা করে। তিনি বলেন, ২০১০ সালের পর বাজার অব্যাহতভাবে নেতিবাচক অবস্থানে রয়েছে। এরপর ওইভাবে দৃশ্যমান উন্নয়ন হয়নি। বিপরীতে বোম্বে এবং সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জের অবস্থা খুব ভালো। তার মতে, স্টক এক্সচেঞ্জ ডিমিউচুয়ালাইজেশন হলেও তার প্রভাব পড়তে অনেক সময় লাগবে। ডিএসইর তথ্য অনুসারে চলতি অর্থবছরের জুলাইয়ে বিদেশিরা শেয়ারবাজারে ৭৮৩ কোটি টাকা লেনদেন করেছে। এর মধ্যে ৩০৯ কোটি টাকার শেয়ার কিনেছে। বিপরীতে ৪৭৪ কোটি টাকার শেয়ার বিক্রি করেছে। এ হিসাবে তারা ১৬৪ কোটি টাকার শেয়ার বেশি বিক্রি করেছে। পরের মাস আগস্টে ৪৫৬ কোটি টাকা লেনদেন করেছে। এর মধ্যে ১৭৬ কোটি টাকার কিনেছে তারা। বিপরীতে বিক্রি করেছে ২৭৯ কোটি টাকার শেয়ার। এ হিসাবে কেনার চেয়ে বিক্রি ১০২ কোটি টাকা বেশি। সব মিলিয়ে দুই মাসে ২৬৬ কোটি টাকার শেয়ার বিক্রি করেছে। এছাড়া জুলাইয়ের তুলনায় আগস্টের লেনদেনের হারও কমে এসেছে। সূত্র জানায়, বিদেশি বিনিয়োগ বাড়াতে ২০১৩ সালের শেষের দিকে উদ্যোগ নিয়েছিল শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। এর মধ্যে বিনিয়োগ পদ্ধতি এবং বিদ্যমান আইনকে আরও সহজ করার উদ্যোগ নেয়া হয়।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।