১৭, নভেম্বর, ২০১৯, রোববার | | ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

জামালপুরে চার বছরের শিশুকে ধর্ষণ!

প্রকাশিত: ৮:১০ অপরাহ্ণ , অক্টোবর ২৩, ২০১৯

জামালপুরে চার বছরের শিশুকে ধর্ষণ!

জামালপুর প্রতিনিধি:  জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার শাহজাদপুর এলাকায় ধর্ষণের শিকার সাড়ে চার বছরের এক শিশুকে ২২ অক্টোবর রাতে জামালপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। প্রতিবেশী শাহজাহান আলী (৫৫) নামের এক ব্যক্তি ২০ অক্টোবর বিকেলে শিশুটিকে ধর্ষণ করেছে বলে শিশুটির নানা অভিযোগ করেছেন।

২৩ অক্টোবর দুপুরে সদর হাসপাতালের দোতলায় গাইনি ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা গেছে, ধর্ষণের শিকার অবুঝ শিশুটিকে ওয়ার্ডের মেঝেতে বিছানা দেওয়া হয়েছে। স্যালাইন দেওয়াসহ তার প্রয়োজনীয় চিকিৎসা চলছে। শিশুটির ডাক্তারি পরীক্ষা করানো হয়নি।

শিশুটির নানার অভিযোগ, ২০ অক্টোবর বিকেলে প্রতিবেশী শাহজাহান আলী শিশুটিকে একা পেয়ে ঘরের পেছনে নিয়ে ধর্ষণ করে। কিন্তু গত তিনদিন ধরে শিশুটি শুধু কান্নাকাটি করছিল। ২২ অক্টোবর বিকেলে মা ও নানী শিশুটির সাথে কেউ খারাপ কাজ করেছে কিনা জানার চেষ্টা করেন। এক পর্যায়ে শিশুটি ঘটনার বর্ণনা দেয় এবং শাহজাহান আলী নামের ওই ব্যক্তিকে চিনিয়ে দেয়। শাহজাহান আলী জেলার ইসলামপুর উপজেলার হারগিলা এলাকার মৃত খলিলুর রহমানের ছেলে। নদীভাঙনের শিকার হয়ে তিনি বগুড়া জেলায় বসবাস করেন। কিছুদিন হলো তিনি শাহজাদপুরে তার বোনজামাই আজিজুর রহমানের বাড়িতে বেড়াতে এসেছেন। ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর শাহজাহান আলী গ্রাম ছেড়ে পালিয়েছেন।

শিশুটির নানা আরো অভিযোগ করেন, ঘটনা জানাজানি হলে শাহজাহান আলীর বোনজামাই আজিজুর রহমান এ ঘটনা নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি না করতে হুমকি দিচ্ছেন। শিশুটির বাবা কুমিল্লায় একটি প্রকল্পে চাকরি করেন। তাকে জানানো হয়েছে। তিনি আজই বাড়িতে এসে থানায় মামলা দায়ের করবেন।

জামালপুর সদর হাসপাতালের আরএমও চিকিৎসক ফেরদৌস হাসান বলেন, ‘শিশুটির প্রয়োজনীয় চিকিৎসা চলছে। তবে তার ডাক্তারি পরীক্ষা করানোর বিষয়ে থানা থেকে এখনো পর্যন্ত আমাদেরকে অবহিত করা হয়নি। থানা থেকে অবহিত করা হলেই শিশুটির ডাক্তারি পরীক্ষা করানো হবে।’

মেলান্দহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রেজাউল ইসলাম খান বলেন, ‘ধর্ষণের শিকার শিশুটির পরিবারের কেউ থানায় কোনো অভিযোগ নিয়ে আসেনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। একই সাথে শিশুটির ডাক্তারি পরীক্ষাও করানো হবে।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।