১৫, নভেম্বর, ২০১৯, শুক্রবার | | ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

মহারাষ্ট্রে শিবসেনাকে সমর্থন নয়, জানালেন সোনিয়া

প্রকাশিত: ১২:২২ অপরাহ্ণ , নভেম্বর ৫, ২০১৯

মহারাষ্ট্রে শিবসেনাকে সমর্থন নয়, জানালেন সোনিয়া

মহারাষ্ট্রে সরকার গঠনের জন্য শিবসেনাকে কোনো সমর্থন দিতে রাজি নয় কংগ্রেস। এমন সিদ্ধান্তের কথা জাতীয়তাবাদী কংগ্রেস পার্টি-এনসিপি’র সভাপতি শারদ পাওয়ারকে জানিয়ে দিয়েছেন কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধী।

কংগ্রেসের দলীয় সূত্রের বরাত দিয়ে এমন খবর প্রকাশ করেছে ভারতীয় বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম।

বিধানসভা নির্বাচনে একসঙ্গে অংশগ্রহণ করলেও সরকার গঠন নিয়ে বিজেপি ও শিবসেনার মধ্যে দর কষাকষি চলছে। রাজ্যে ক্ষমতার সমান ভাগ চায় শিবসেনা। মুখ্যমন্ত্রিত্বের পাশাপাশি মন্ত্রিসভাতেও অর্ধেক ভাগ চায় দলটি। তাদের এ দাবি মানতে নারাজ বিজেপি। বনিবনা না হওয়ায় বিজেপিকে বাদ দিয়েই মহারাষ্ট্রে সরকার গঠনের চেষ্টা চালাচ্ছিল শিবসেনা।

বিজেপিকে বাদ দিয়ে সরকার গঠনের লক্ষ্যে শিবসেনা এনসিপি প্রধান শারদ পাওয়ারের সঙ্গে যোগাযোগও করেছিল। আর এ বিষয়ে কংগ্রেসকে রাজি করানোর দায়িত্ব পড়েছিল শারদ পাওয়ারের কাঁধেই।

সোমবার (০৪ নভেম্বর) সন্ধ্যায় দিল্লিতে কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে বৈঠকেও বসেন শারদ পাওয়ার। তাদের মধ্যে দীর্ঘ আলোচনা হয়। বৈঠকে কী সিদ্ধান্ত হলো তা গণমাধ্যমকে জানাতে চাননি এনসিপি প্রধান। তিনি বলেছেন, আগামী দিনেও বৈঠক হবে।

বর্ষিয়ান এই রাজনীতিকের এমন কৌশলী মন্তব্য থেকে ধারণা করা হচ্ছে, শিবসেনাকে সমর্থনের প্রস্তাবে রাজি হননি সোনিয়া। নীতিগত কারণে কংগ্রেস সভাপতি এমন সমর্থনের পক্ষে নন বলে কংগ্রেস সূত্র জানিয়েছে। যদিও বিজেপিকে ক্ষমতা থেকে দূরে রাখতে এনসিপি শিবসেনাকে সমর্থনের পক্ষে ছিল। কিন্তু কংগ্রেস বেঁকে বসায় এই প্রক্রিয়া বড় ধাক্কা খেল বলে মনে করা হচ্ছে।

শিবসেনাকে সমর্থন না দেওয়ার সিদ্ধান্তের ফলে মহারাষ্ট্রে সরকার গঠন নিয়ে চলমান অচলাবস্থা আরও ঘণীভূত হলো বলে ধারণা করছেন ভারতীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

গত ২১ অক্টোবর বিধানসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশিত হয়। ওই নির্বাচনে বিজেপি ১০৫ আসন এবং ৫৬টি আসনে জিতেছে শিবসেনা। এর পর থেকেই সরকার গঠন ঘিরে দুই দলের মধ্যে দর কষাকষি শুরু হয়। আগামী ৮ নভেম্বর বর্তমান বিধানসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে। এই সময়ের মধ্যে রাজ্যে নতুন সরকার গঠিত না হলে রাষ্ট্রপতির শাসন জারি হতে পারে।

সূত্র: এনডিটিভি


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।