১৩, নভেম্বর, ২০১৯, বুধবার | | ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

সিনেমা হল এখন অত্যাধুনিক মানের ডায়াগনষ্টিক সেন্টার

প্রকাশিত: ৮:৫১ অপরাহ্ণ , নভেম্বর ৮, ২০১৯

সিনেমা হল এখন অত্যাধুনিক মানের ডায়াগনষ্টিক সেন্টার

চরফ্যাশন(ভোলা)প্রতিনিধি: চরম ক্রান্তিকাল পার করছে চলচ্চিত্র প্রদর্শন শিল্প। ক্রমশ নিভে যাচ্ছে দেশের সিনেমা হলগুলোর রূপালী পর্দার আলো। চরফ্যাশন উপজেলা বৃহৎ সাগরী সিনেমা হল এখন অত্যাধুনিক মানের ডায়াগনষ্টিক সেন্টার গড়ে উঠেছে। আজ শনিবার আনুষ্ঠানিকভাবে ওই টুনু চৌধুরী ম্যামোরিয়াল ডায়াগনষ্টিক সেন্টার উদ্বোধন করবেন ভোলা-৪(চরফ্যাশন-মনপুরা)আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব। টুনু চৌধুরী ম্যামোরিয়াল ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের চেয়ারম্যান মো.মিজানুর রহমান বলেন, ব্যবসা মুখ্য বিষয় নয়,মান উন্নয়ন,উন্নত যন্ত্রপাতি এবং ভাল মানের ডাক্তার দিয়ে গরীব রোগীদের সেবা দেয়াই মুখ্য বিষয়।

দেখা গেছে, এভাবে গত দুই দশকে বন্ধ হয়ে গেছে চরফ্যাশন শহরের বেশ কয়েকটি সিনেমাহল। অনন্ত এই জেলায় এখন সিনেমা হল নেই বললে চলে। সারাদেশে ঢিমেতালে টিকে আছে ১৭৪ টি হল। এর মধ্যে অনিয়মিত ছবি প্রদর্শিত হচ্ছে চরফ্যাশনে ১ টিতে। এখন কেবল হল ভাঙার প্রতিযোগিতা চলছে। সিনেমা হল ভেঙে নির্মাণ করা হচ্ছে মাল্টিকমপেক্স, গুদাম, গ্যারেজ, মার্কেট বা বেসরকারি হাসপাতাল। মানহীন সিনেমা, অনুন্নত পরিবেশ, হল আধুনিকায়ন না হওয়া, হাতের মুঠোয় ইউটিউব, নেটফ্লিক্স, আইফ্লিক্সে সিনেমা দেখার অপার সুযোগ ইত্যাদি কারণে সিনেমা হল থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন দর্শকরা। ঐতিহ্যবাহী প্রেক্ষাগৃহসমূহের ক্রমবিলুপ্তির এই কালে আশা জাগিয়েও গণমানুষের কাছাকাছি যেতে পারছে না হাল ফ্যাশনের সিনেপেক্সগুলো। পুঁজিবাদী বাজার ব্যবস্থার সঙ্গে তাল মেলাতে ব্যর্থ হচ্ছেন এর মালিকরা।

 

তাই প্রেক্ষাগৃহগুলো বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির নেতারা। তারা বলছেন, যে হলগুলো টিকে আছে তা লোকসান গুনে চালাতে হচ্ছে। ছবি চালিয়ে মাস শেষে বিদ্যুৎ্ বিল, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতনসহ নানা মেইনটেন্যান্স খরচ তোলা যাচ্ছে না। গত রোজার ঈদে মুক্তি পাওয়া একটি সুপার হিট ছবি সম্প্রতি সবুজ সিনেমা হলে প্রদর্শন করা হয়। দুঃখজনক হলেও সত্য, প্রথম শোতে টিকিট বিক্রি হয় মাত্র ৩শ থেকে ৪শ টাকার মতো।

তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, নব্বই দশকের শেষ দিক থেকে মূলত শুরু হয় সিনেমা হলের মন্দার দিন। স্যাটেলাইট টিভি, ইন্টারনেট, মোবাইল ফোনে দর্শকদের ক্রমাগত হল বিমুখ করতে থাকে। এক সময় সিনেমা হল ভাঙলে দর্শকদের ভিড় যেন মিছিলের রূপ পেত।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।