১৪, ডিসেম্বর, ২০১৯, শনিবার | | ১৬ রবিউস সানি ১৪৪১

পটুয়াখালীতে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল’র তান্ডবে দুই জনের মৃত্যু, ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত

প্রকাশিত: ১০:৪৩ পূর্বাহ্ণ , নভেম্বর ১২, ২০১৯

পটুয়াখালীতে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল’র তান্ডবে দুই জনের মৃত্যু, ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত

পটুয়াখালী প্রতিনিধি: বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় বুলবুল’র তান্ডবে রবিবার রাতভর প্রবল বর্ষন ও ঝড়ো হাওয়ায় পটুয়াখালী জেলায় দুই জনের মৃত্যু ও ২,৮১০টি ঘরবাড়ি, ২ লক্ষ ১হাজার ৩০০টি গাছ বিধ্বস্ত এবং বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে ২৮.৫০ হেক্টর জমির রোপা আমন ফসলের ক্ষতি হয়েছে। বুলবুলের তান্ডবে জেলার সর্বত্র ২৭ ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ ছিল বন্ধ।

পটুয়াখালী জেলা কন্ট্রোল রুম সূত্রে জানাগেছে, ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের তান্ডবে জেলায় ২,৮১০টি ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। এর মধ্যে সম্পূর্ন ক্ষতি হয়েছে ৩৯৮টি এবং আংশিক ক্ষতি হয়েছে ২৪১২টি। ফসলের ক্ষতি হয়েছে ২৮.৫০ হেক্টর রোপা আমন ক্ষেত। ১২জন জেলেসহ একটি মাছধরা ট্রলার নিখোঁজ এবং দুই লক্ষাধিক গাছ বিধ্বস্ত হয়েছে বলে জেলা প্রশাসনের কন্ট্রোল রুমের দায়িত্বপ্রাপ্ত এনডিসি মোঃ মাহবুবুল ইসলাম জানান।

 

এ ছাড়াও ২০টি গবাদি পশু, ১৪২৮টি হাঁসমুরগী মারাগেছে এবং একাধিক মাছের ঘের পানিতে তলিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকার মাছ ভেসে গেছে বলে স্থানীয়রা জানায়।

 

এদিকে প্রবল বৃষ্টিপাতে ও জোয়ারের পানিতে জেলা শহরের লতিফ স্কুল সড়ক, মুসলিপাড়া সড়কসহ এলাকা, সরকারি মহিলা কলেজ সড়ক, সরকারি জুবিলী স্কুল সড়ক, জেলা কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজ সড়ক, পুরান বাজার এলাকা, শের-ই-বাংলা বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ অধিকাংশ নিম্মাঞ্চল বৃষ্টির পানিতে প্লাবিত হয়ে অনেক ক্ষতি হয়েছে, লাউকাঠি শহিদ স্মৃতি বিদ্যানিকেতন এর ২টি শ্রেণী কক্ষের উপর, ফায়ার সার্ভিস এলাকায় একটি বসত ঘরের উপর গাছ উপড়ে পড়ে অনেক ক্ষতি হয়েছে, উত্তর বাদুরা গাজী নজরুলের মাছের ঘের বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে তলিয়ে পাঁচ লক্ষাধিক টাকার মাছ ভেসে গেছে বলে স্থানীয়রা জানান।

 

পটুয়াখালী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক হৃদয়েশ্বর দত্ত জানান, রোপা আমন ক্ষেত পানিতে ডুবে ক্ষতি হতে পারে। প্রকাশ, এ বছর জেলায় দুই লক্ষ দুই হাজার ৩০ হেক্টর জমিতে রোপা আমান চাষাবাদ হয়েছে।

 

পটুয়াখালী পল্লী বিদ্যুৎ বিভাগের মহাব্যবস্থাপক প্রকৌশলী মনোহর কুমার বিশ্বাস জানান, জেলায় ঘূর্ণিঝড় তান্ডবে গাছ পড়ায় শতাধিক বিদ্যুতের খুটি ভেঙ্গে যাওয়ায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ ছিল। এ সব খুটি মেরামত ও নতুন করে খুটি স্থাপনে ৮০০ লোক মাঠে রাতদিন কাজ করছে। দ্রæত সময়ের মধ্যে কলাপাড়া, বাউফল, দুমকি, মির্জাগঞ্জ, গলাচিপা উপজেলা শহরে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে। লোকালয় গ্রামসমূহেও দ্রæত সময়ে বিদ্যুৎ সরবরা করা হবে।

 

পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক মোঃ মতিউল ইসলাম চৌধুরী জানান, ঘূর্ণিঝড় বুবুলের তান্ডবে ক্ষতিগ্রস্থদের পুর্নবাসনের জন্য সরকার ব্যাপক উদ্যোগ নিয়েছে।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।