২০শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং, সোমবার
২৫শে জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

নিজের বা অন্যের খেয়াল রাখার জন্য যথেষ্ট বড় তো?

প্রকাশিত: ১১:৪৭ পূর্বাহ্ণ , নভেম্বর ১৯, ২০১৯

নিজের বা অন্যের খেয়াল রাখার জন্য যথেষ্ট বড় তো?

সিএনআই ডেস্ক: আপনার বড় সন্তানটি আপনার ছোট সন্তানের খেয়াল রাখতে পারবে তো? সন্তানদের নিয়ে এমন চিন্তা সব বাবা-মায়ের মধ্যেই কাজ করে। সম্প্রতি তাই গবেষকরা ব্যাপারটি নিয়ে কাজ করেছেন। ঠিক কতটা বয়সের পর একজন শিশু অন্য একজন শিশুর খেয়াল রাখতে সক্ষম হয়? আসলেও কি এ ক্ষেত্রে সঠিক বয়স বলে কিছু আছে?

সাধারণত মতামত অনুসারে, একেকজন শিশু মানসিকভাবে পরিপক্ব হয়ে ওঠে ভিন্ন ভিন্ন বয়সে। চারপাশের পরিবেশ এবং অন্যান্য বিষয়ের ওপর নির্ভর করে যে কোনো শিশু আরেকজন শিশুর যথাযথ খেয়াল রাখতে পারবে কি না। বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে উঠলেও এমনটা হতে পারে। এই যেমন- আপনার শিশুটি হয়তো পাশের বাসার একটি শিশুর সাথে সময় কাটাতে ভালোবাসে। মানসিক এই সম্পর্ক গড়ে উঠলে আপনি বয়সের বড় শিশুটিকে ছোট শিশুটির খেয়াল রাখার ক্ষেত্রে ভরসা করতেই পারেন। কিন্তু, সেটাও ঠিক কখন? কত বছর বয়সের পর? চলুন, এ ব্যাপারে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক-

আপনার শিশু কি অনেক ছোট?

ক্যালিফোর্নিয়ার সাইকোথেরাপিস্ট ফ্র্যান ওয়ালফিশের মতে, একজন শিশু অন্যের এবং নিজের খেয়াল রাখতে পারে ১৫ বছর বয়সের পর। যদিও এই হিসাবটা একেকজনের কাছে একেকরকম। অনেকসময় একজন ১৫ বছর বয়স্ক শিশুকে একলা বা অন্য একজন শিশুর সাথে বাসায় ছেড়ে আসলে আপনার হয়তো চিন্তা হবে।

অন্যদিকে, ১০ বছর বয়স্ক একজন শিশুকে হয়তো কোনো চিন্তা ছাড়াই বাসায় রেখে আসতে পারবেন আপনি। এই পুরো ব্যাপারটি পুরোপুরিই নির্ভর করে শিশুটির ওপরে।

সম্প্রতি আমেরিকান একাডেমি অব পেডিয়াট্রিক্সে প্রকাশিত একটি গবেষণা অনুসারে, একজন শিশুকে একলা বাসায় ছেড়ে যাওয়ার বা অন্য একজন শিশুর প্রতি খেয়াল রাখার জন্য শিশুটির বয়স অন্তত ১২ হওয়া প্রয়োজন। আর এর সময়কাল ৪ ঘণ্টার বেশি হওয়া উচিত নয়। এ ক্ষেত্রে সমাজকর্মীদের মতামত নেওয়া হয়। তাদের মতামতেও ভিন্নতা দেখা যায়।

মূল ব্যাপারটি ছিল এটাই যে, একজন শিশু ঠিক কত বছর বয়স্ক হলে তাকে একা বা অন্য শিশুর সাথে ছেড়ে আসাটাকে অবহেলা বলা যাবে না। তবে শিশুদের প্রতি বাবা-মায়ের অবহেলার কারণেও এমনটা করে থাকেন অনেকে। আর এজন্য মতামতটাও ভিন্ন এসেছে। সমাজকর্মীদের মধ্যে শতকরা ৮০ শতাংশ মতামত জানিয়েছেন যে, ৮ বা এর চাইতে কম বয়সী শিশুকে একা বা অন্য শিশুর সাথে ঘরে রেখে আসলে সেটাকে অবহেলা বলে। অন্য ৫০ শতাংশ সমাজকর্মী ভেবেছেন যে, এই অবহেলা ১০ বছরের কমবয়সী কোনো শিশুকে একা ঘরে রেখে আসলেই দেখানো হয়।

শিশুকে কীভাবে তৈরি করবেন?

একজন শিশু নিজ থেকেই অন্যের খেয়াল রাখার ব্যাপারটি বা নিজের দেখভাল করার ব্যাপারটি আয়ত্ত করতে পারবে না, সেটাই স্বাভাবিক। সেক্ষেত্রে আপনাকে এ ব্যাপারে তাকে মানসিকভাবে তৈরি করতে হবে। আপনি যদি ছোটবেলা থেকেই আপনার সন্তানকে ছোটোখাটো কাজগুলো নিজে করার ব্যাপারে উৎসাহিত করেন, সিদ্ধান্ত নিতে ও ভাবতে বলেন, সেক্ষেত্রে সে এ ব্যাপারে পারদর্শী হয়ে উঠবে।

এছাড়া অন্যদের প্রতি দায়িত্বশীল হওয়ার ব্যাপারে শিক্ষা দিলে আপনার শিশু শুধু নিজের নয়, অন্যেরও খেয়াল রাখতে পারবে খুব সহজেই। এ ক্ষেত্রে ছোট সন্তান থাকলে বড় সন্তানকে কীভাবে ছোটদের খেয়াল রাখতে হয় এ ব্যাপারে একটু একটু করে শেখাতে পারেন বাবা-মা।

হয়তো হুট করে আপনার ছোট্ট সন্তানটি অন্যের এবং নিজের খেয়াল রাখতে শিখে যাবে না। তবে হ্যাঁ, একটু একটু করে তাকে সময়, সুযোগ ও শিক্ষা প্রদান করলে সে ধীরে ধীরে এ ব্যাপারে পারদর্শী হয়ে উঠবে। ফলে আপনিও অনেকটা চিন্তামুক্ত থাকতে পারবেন।

সূত্র- হেলথ লাইন


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।