১৬, ডিসেম্বর, ২০১৯, সোমবার | | ১৮ রবিউস সানি ১৪৪১

‘অঘোষিত’ ধর্মঘটে চরম দুর্ভোগে যাত্রীরা

প্রকাশিত: ১:৩৪ অপরাহ্ণ , নভেম্বর ১৯, ২০১৯

‘অঘোষিত’ ধর্মঘটে চরম দুর্ভোগে যাত্রীরা

সিএনআই ডেস্ক: নতুন সড়ক পরিবহন আইন সংস্কারের দাবিতে খুলনা, যশোর, রাজশাহীসহ দেশের বেশ কয়েকটি জেলায় অঘোষিত ধর্মঘট ও কর্মবিরতি পালন করছেন বাস চালকরা। সোমবার নতুন আইন কার্যকরের পর থেকে এই আইনের বিরোধীতা করে অনির্দিষ্টকালের জন্য বাস চলাচল বন্ধ রাখে তারা। আজও মঙ্গলবার দ্বিতীয় দিনেও তাদের এই কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছে যাত্রীরা।

আজ মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) অঘোষিত ধর্মঘটে যোগ দিয়েছেন খুলনা, যশোর, চুয়াডাঙ্গা, সাতক্ষীরা, নড়াইল, ঝিনাইদহ ও মেহেরপুরের পরিবহন শ্রমিকরা। বাস চলাচল বন্ধ থাকায় দুর্ভোগে পড়েছেন এসব এলাকার যাত্রীরা। ধর্মঘট চলছে দিনাজপুর-হিলি-বগুড়া রুটেও। তবে এসব ধর্মঘট বিক্ষিপ্তভাবে হচ্ছে এবং এর সঙ্গে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবি করেছেন সংগঠনটির নেতারা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আগামী বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার বাংলাদেশ বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের বৈঠক ডাকা হয়েছে। এই বৈঠকে যদি বাস শ্রমিকদের দাবি মেনে নেওয়া হয়, তাহলে সড়কে বাস চলাচল আবার স্বাভাবিক হবে।

এই ব্যাপারে ফেডারেশনের সভাপতি শাজাহান খান বলেন, নতুন আইনটি নিয়ে শ্রমিকরা ‘বিভ্রান্তিতে’ আছে। অনেকেই ভয়ে সড়কে বাস নামাচ্ছে না। আমরা আগামী ২১ ও ২২ তারিখ শ্রমিক ফেডারেশনের বৈঠক করবো। এখানে এবিষয় বিস্তারিত আলোচনা হবে। শ্রমিকদের দাবিগুলো আমার সরকারের কাছে তুলে ধরবো। আশা করি সরকার বিষয়টি বিবেচনা করবে।

এসব ধর্মঘট বিক্ষিপ্তভাবে হচ্ছে জানিয়ে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওসমান আলী গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা কেন্দ্রীয়ভাবে ধর্মঘটের কোনো কর্মসূচি দিইনি। আমরা শ্রমিকদের বলেছিলাম ২১ তারিখ পর্যন্ত এ ধরনের কোনো কর্মসূচিতে যাব না। ২১ ও ২২ নভেম্বর সারা দেশের পরিবহন শ্রমিক সংগঠনকে নিয়ে সভা অনুষ্ঠিত হবে। ওই সভা থেকেই পরবর্তী কর্মসূচি গ্রহণের ঘোষণা দেব। কিন্তু অনেক জেলায় পরিবহন শ্রমিকরা আমাদের সেই নির্দেশনা না মেনে অতি উৎসাহী হয়ে ধর্মঘট শুরু করেছেন।


সিএনআই’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।