৭ই এপ্রিল, ২০২০ ইং, মঙ্গলবার
১৩ই শাবান, ১৪৪১ হিজরী

মানসিক ভারসাম্যহীনদের খাবার পৌছে দিচ্ছে টিম-১৯

তেঁতুলিয়ায় (পঞ্চগড়) প্রতিনিধি:  করোনা ভাইরাস ঠেকাতে সারাদেশের ন্যায় পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় চলছে অঘোষিত লকডাউন। এ লকডাউনের কারণে শুধু ঔষুধ, মুদি ও কাচাবাজার ছাড়া বন্ধ রয়েছে হোটেল-রেস্তোরা, খাবারের সব দোকানপাট। এতে করে ঘরহীন ভাসমান মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষগুলো খাদ্য সংকটে পড়ে অসহায় হয়ে পড়ছিলেন। এসব ঘর-বাড়িহীন মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষদের খুঁজে খুঁজে মুখে খাবার তুলে দিচ্ছে টিম-১৯ নামের তরুণদের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। তার সাথে যুক্ত হয়েছে বিভিন্ন সামাজিক ব্যক্তির স্ব-উদ্যোগ। বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার সদর চৌরাস্তা বাজারে দেখা যায়, টিম-১৯ এর স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনটির সদস্যরা কিছু মানসিক ভারসাম্যহীনদের হাতে রান্না করা খাবার তুলে দিচ্ছেন। পাশাপাশি ঢাকাস্থ ফারুক আজমের পক্ষে সফর আলী প্রধান তেঁতুলিয়ায় ও পঞ্চগড়ে সিনিয়র সাংবাদিক শহীদুল ইসলাম শহীদের উদ্যোগে বাড়িতে খিচুড়ি রান্না করে শহরে এমন মানুষকে খুঁজে বের করে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন। বুধবার সকাল থেকে তিনি স্ব-উদ্যোগে এই কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন। দেশের সীমান্তবর্তী তেঁতুলিয়া উপজেলায় কতজন মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষ রয়েছেন তার সঠিক হিসাব নেই। তবে উপজেলা প্রশাসনের মতে প্রায় শতাধিক রয়েছে মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষ। এসব মানুষগুলো ছাদহীন ঘরের খোলা আকাশের নিচে রাস্তাঘাট, হাট-বাজারের বিভিন্ন দোকানের বারান্দায় দিন পার করছে। এসব অসহায় মানুষদের এখানকার হাট-বাজারের হোটেল, রেস্টুুরেন্ট বা খাবারের দোকানগুলো স্ব- উদ্যোগে খাবারের ব্যবস্থা করতেন। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারের নির্দেশে বন্ধ করে দেয়া হয় শহর ও আঞ্চলিক হাট-বাজার, হোটেল, রেস্টুুরেন্টসহ খাবারের দোকান। ফলে রাস্তাঘাটে মানসিক ভারসাম্যহীন ভবঘুরে মানুষগুলো পড়ে খাদ্য সংকটে। উপজেলা শহরের কিছু তরুণ মিলে তাদের খাবারের ব্যবস্থা করার উদ্যোগ নেয়। করোনার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ যোদ্ধা হিসেবে টিমের নাম দেয় টি ১৯। গত ২৮ মার্চ তারা এই কর্মসূচি হাতে নেয় বলে জানায় সংগঠনটির আহবায়ক সাব্বির হোসেন রকি। প্রথম দিকে টিম ১৯ তাদের স্ব-উদ্যোগে খাবার সরবরাহ শুরুর কার্যক্রমের খবর জানতে পেরে এগিয়ে আসেন ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদুল হক। তখন থেকে টিম-১৯কে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল সহায়তা করা হচ্ছে। টিম ১৯ এর সদস্যরা জানায়, উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের প্রায় ৬৫ জন মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষের কাছে তারা দুই বেলা খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন। নিজেদের তত্ত্বাবধানে রান্না করে দুটি দলে বিভক্ত হয়ে মোটরবাইক নিয়ে খাবারগুলো পৌঁছে দিচ্ছেন তারা। টিম ১৯ এর আহবায়ক সাব্বির হোসেন রকি জানান, শুরুতে আমরা নিজেরাই চাঁদা দিয়ে খাবার সংগ্রহ শুরু করি। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এগিয়ে আসেন। তার সহযোগিতায় এখন আমরা উপজেলার আনাচে কানাচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষকে খাবার পৌঁছে দিচ্ছি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মাসুদুল হক জানান, মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষেরা বর্তমানে অসহায়। তাদেরকে দুই বেলা খাদ্য পৌঁছে দিচ্ছে টিম ১৯। এই কাজটিকে দীর্ঘমেয়াদি স্থায়ী রাখার জন্য আমরা উদ্যোগ নিয়েছি। টিম নাইনটিনের উদ্যোগটি যাতে স্থায়ী হয় এ জন্য কাজ করছে উপজেলা প্রশাসন।