২৯শে মার্চ, ২০২০ ইং, রবিবার
৫ই শাবান, ১৪৪১ হিজরী

করোনা ভাইরাস আবেগি আতঙ্ক ও ধান্দার বাজার

তুহিন আফসারী: আমরা এখন ভয়, শংকা আর আতঙ্কের সাথে ঘর করছি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়া একই সাথে ভয় ও স্বস্তি দিতে ব্যস্ত। অনেকের মধ্যে অনেক ধরনের আবেগ কাজ করছে। কেউ উপরওয়ালার উপর ভর করছেন যে কিনা কোন কিছুই মানতেন না। কেউ আগাম মাফ চেয়ে নিয়েছেন। কেউ সাবেক আবেগের কাছেও জানিয়ে রাখছেন সেই কথা যা আগে বলা হয়নি। আমাদের এই সিজেনাল পরিবর্তনের কারন হলো করোনা ভাইরাস। এটি শুধু আমাদেরই না গোটা পৃথিবীর মানুষের মধ্যে আতঙ্ক নিয়ে বিরাজ করছে। যারা আমরা আতঙ্কিত তারা দেখবেন, অনেক ইতিবাচক খবর আছে যা এই উৎকন্ঠা থেকে আমাদের উদ্ধার করতে পারে। আসুন করোনা নিয়ে ভয় না পেয়ে তাকে মোকাবেলা করি। জ্বর, সর্দি, কাশি হলে বাসায় থেকে কর্মস্থল, গণযানবাহন ও জনবহুল এলাকা এড়িয়ে চলি। বিশেষজ্ঞদের মতে যা করা দরকার, হাত মেলানো ও আলিঙ্গন করা থেকে বিরত থাকা; কাশি বা হাঁচি দেয়ার সময় কনুই অথবা টিস্যু দিয়ে মুখ ঢেকে রাখা; - নিয়মিত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে অথবা এলকোহল-বেজড হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করা; মুখ, নাক ও চোখে হাত না দেই; অন্যের থেকে অন্তত ৩ ফুট (১ মিটার) দূরে দাড়াই; তারমানে হলো যদি অযাচিত স্পর্শ এড়িয়ে চলা, জনসমাগম এড়িয়ে চলা, পরিছন্নতা, বিশুদ্ধ পানি পান করা যায় তবে এই ভাইরাস থেকে আপনি নিরাপদ থাকবেন। সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ হলো অসুস্থবোধ করলে বিশেষজ্ঞ সহায়তা নেয়া মানে হলো কোনধরনের অসঙ্গতি বোধ করলেই সাথে সাথে ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহন করা। ইউনিসেফ আরো বলছে। নিচের ছয়টি উপায় মেনে চললে বাংলাদেশে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ করা সম্ভব। ১. করোনা ভাইরাস বিশালাকৃতির ভাইরাস, যার কোষের প্রস্থ ৪০০ থেকে ৫০০ মাইক্রোমিটার। সুতরাং যে কোনও মুখোশ যেটা এই আকারের বস্তুকে প্রতিহত করতে পারে সেটা ব্যবহার করলেই হবে, ফার্মাসিস্টদের কাছে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। ২. ভাইরাসটি বায়ুবাহী নয়, আকারে বড় ও ভারী বলে এটা মাটিতে পড়ে থাকে। ৩. করোনা ভাইরাস যখন ধাতব কোনো পৃষ্ঠের উপর পড়ে তখন এটি ১২ ঘন্টা পর্যন্ত বাঁচতে পারে। কাপড়ের উপরে পড়লে ৯ ঘন্টা, সরাসরি শরীরে লাগলে ১০ মিনিট পর্যন্ত বাঁচতে পারে। তাই সাবান এবং পানি দিয়ে ভালভাবে জামাকাপড়, শরীর পরিষ্কার করলে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিহত করা সম্ভব। ৪. যদি ভাইরাসটি ২২ক্ক-২৭ক্ক ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় চলে আসে তবে এটি মারা যাবে, কারণ এটি গরম অঞ্চলে বাস করে না। এছাড়াও গরম পানি খেলে এবং সূর্যের আলোয় থাকলে করোনাভাইরাস কার্যকর হতে পারে না। ৫. আইসক্রিম থেকে দূরে থাকুন এবং ঠান্ডা আবহাওয়া পরিহার করুন। ৬. উষ্ণ- লবণপানিতে গার্গল করলে করোনাভাইরাস মরে যায় এবং টনসিল ও ফুসফুসে প্রবেশ করতে পারে না। এইবার আসুন ধান্দার বাজার ঘুরে আসি। একটু খেয়াল করলেই দেখবেন আমাদের নিয়ে ধান্দা শুরু হয়ে গেছে। ধান্দাবাজরা আপনার আমার আবেগ ও ভয়কে কাজে লাগিয়ে ধান্দার বাজার তৈরী করছে। ধান্দার বাজার তৈরীতে আমাদের চেষ্টার কমতি নেই। আসুন ঘুরে আসি সেই বাজার থেকে। ধান্দা - ১. করোনা ভাইরাস স্বপ্নে এসে কথা বলেছে এবং সে কবে কখন কোথায় আক্রমণ করবে সিডিউল জানিয়েছে। অতএব ভয়ের কারন নেই। ধান্দা - ২. রাস্তার পাশে ছালার চট বিছিয়ে করোনার ওষুধ বিক্রি হচ্ছে। তিনদিনের মাথায় মুক্তি বিফলে মূল্য ফেরত। ধান্দা - ৩. আগে আমরা এইডস আর ক্যান্সারের ওষুধ বিক্রি করতাম এখন করোনার ওষুধ ও পাওয়া যাচ্ছে। ধান্দা - ৪. মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার মানুষের দরকার অতএব এগুলোর মজুদ ও দাম বাড়িয়ে দিচ্ছে। ধান্দা - ৫. অমুক জায়গায় এতোজন মানুষ আক্রান্ত, এতোজন মারা গেছে টাইপের খবর মুখে মুখে ছড়িয়ে দিচ্ছে। ধান্দা - ৬. যতো পারি আজগুবি ডট কমের আজব খবর শেয়ার করছি। এর বাইরেও সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের বাজেট বেড়ে যাবে। প্রচুর জিনিস মঙ্গল, চন্দ্র থেকে আমদানি হবে। প্রয়োজনীয় কোন কিছুই হাসপাতালে পাবেন না, প্রাইভেট হাসপাতাল গুলো রমরমা। মোটকথা লাভে লাভ মতোন অবস্থা। আমাদের এই কাজগুলো আমাদের ক্ষতির পরিমাণ অনেকগুণ বাড়িয়ে দেবে। তাই এইসব ধান্দা নিয়ে সতর্ক থাকুন। স্বয়ং ইউনিসেফ এবিষয়ে সতর্ক বার্তা জারি করেছে। ইউনিসেফ অবিশ্বস্ত বা অ-যাচাইকৃত উৎস থেকে পাওয়া তথ্য শেয়ার বা প্রচার থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়ে বলছে, এতে করে আতঙ্ক, ভয়ভীতি ছড়াতে পারে বা কারো নামে কলঙ্ক রটে যেতে পারে। এর ফলে লোকজন এ ভাইরাস থেকে অরক্ষিত বা আরও বেশি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় পড়তে পারে। ঘনবসতির এই দেশে খুব সহজে এই ভাইরাস মহামারী আকার ধারণ করতে পারে। নিজেদের ভালোর জন্য অন্তত এটি নিয়ে ধান্দা বন্ধ করুন, তা সে আবেগিয় হোক আর বানিজ্যিক হোক। আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টা আর সচেতনতাই পারে এই দুর্যোগ থেকে রক্ষা করতে। তাই আতঙ্কিত না হয়ে প্রতিরোধ ও প্রতিকারে সোচ্ছার থাকাটাই জরুরি। সবাই সুস্থ থাকুন, ভালো থাকুন। সতর্ক থাকুন সবকিছু থেকে।