বৃহস্পতিবার, ২রা জুলাই, ২০২০ ইং

যাত্রা শুরু করলো সিএমপি-বিদ্যানন্দ ফিল্ড হাসপাতাল

মোহাম্মদ তারেক,চট্টগ্রামঃ কথায় বলে কান্নাকাটি করা বাচ্চারা দুধ বেশি পায়, তার উল্টা হয়নি চট্টগ্রামের বেলায়। কে দেয়নি অবিভাবকহীন চট্টগ্রাম বলে ফেসবুকে স্ট্যাটাস? কার মুখ দিয়ে বের হয়নি অসহায় অবহেলিতো চট্টগ্রাম আজ করোনা সংকটে হাহাকার সময় পার করতেছে? প্রথম দিকে চট্টগ্রামে করোনার প্রভাব বিস্তার দেখে সবাই হতাশ ছিল কারণ করোনা চিকিৎসা সেব পাওয়ার তেমন কোন ব্যাবস্থা ছিলনা। যার ফলশ্রুতিতে চট্টগ্রাম বাসীর আশা পূরণ হতে যাচ্ছে দিনদিন। হতাশার দিন ধীরে ধীরে সমাপ্তির দিকে। শুরু থেকেই আক্রান্তের সংখ্যাও বেশি ছিল যার কারণে অনেকটা বড় বিপদের সম্মুখীন হতে যাচ্ছিল। কিন্তু কিছু মানবিক ব্যক্তিবর্গ এবং সংগঠন তা হতে দেয়নি। তারমধ্যে অন্যতম ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি)। সিটি কর্পোরেশনের পাশাপাশি ব্যক্তিগত উদ্যোগেও করা হয়েছে আইসোলেশন সেন্টার। এবার করোনা সংকটে প্রথমে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ ও বিদ্যানন্দ ফাউন্ডশনের ব্যবস্থাপনায় বন্দর নগরী চট্টগ্রামের পতেঙ্গায় যাত্রা শুরু করলো সিএমপি-বিদ্যানন্দ ফিল্ড হাসপাতাল।

অদ্য ০১/০৭/২০২০খ্রিঃ ১১:০০ ঘটিকায় বন্দর নগরী চট্টগ্রামের পতেঙ্গায় এই হাসপাতালের উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার জনাব মোঃ মাহাবুবর রহমান বিপিএম, পিপিএম। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব ফারুক আহমেদ, ভাইস চেয়ারম্যান, বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন।

জনগণের অর্থায়নে নির্মিত এই হাসপাতালে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে করোনা পজেটিভ রোগীদের পাশাপাশি অন্যান্য উপসর্গের রোগীদেরও চিকিৎসা দেওয়া হবে। প্রাথমিকভাবে প্রতিদিন ১০টি করে করোনা স্যাম্পল কালেকশন করা হবে। ১২ জন দক্ষ চিকিৎসক, ১৬ জন নার্স ও ৫০ জন স্বেচ্ছাসেবকের সমন্বয়ে গঠিত টিম থাকবে রোগীদের সার্বক্ষনিক চিকিৎসার দায়িত্বে। এছাড়াও টেলিমেডিসিন সেবার মাধ্যমে যুক্ত হবেন দেশ বিদেশের বিভিন্ন প্রান্তের দক্ষ চিকিৎসকগণ। প্রতিটি বেডে থাকবে সেন্ট্রাল অক্সিজেন সাপ্লাই সিস্টেম। রোগীদের যাতায়াতের জন্য সার্বক্ষনিক ভাবে প্রস্তুত থাকবে দুইটি এ্যাম্বুলেন্স। প্রাথমিকভাবে ৫০ শয্যা দিয়ে যাত্রা শুরু করা এই হাসপাতালকে দ্রুত সময়ের মধ্যে ১০০ শয্যায় রূপান্তর করা হবে।

ইতোমধ্যে সিএমপির ব্যবস্থাপনায় দামপাড়াস্থ সিএমপির সদরদপ্তরে নিয়োগকৃত ডাক্তার ও নার্সদের জন্য ব্রিফিং ও ট্রেনিং সেশনের আয়োজন করা হয়। ট্রেনিং প্রদান করেন খ্যাতনামা মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ইউ এস টিসি কোভিড হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক প্রফেসর সৈয়দ জাবেদ।

সিএমপি ও বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে নির্মিত এই হাসপাতাল বন্দর নগরীর জনসাধারনের চিকিৎসা সেবায় ও করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে বলে সিএমপি কমিশনার আশাবাদ ব্যক্ত করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রশাসন ও অর্থ) জনাব আমেনা বেগম, বিপিএম-সেবা, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) জনাব এস. এম. মোস্তাক আহমেদ খান বিপিএম, পিপিএম (বার), অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম এন্ড অপারেশন) জনাব শ্যামল কুমার নাথ সহ পুলিশের অন্যান্য ঊদ্ধর্তন কর্মকর্তাবৃন্দ, হাসপাতালের ডাক্তার, নার্স ও বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তাবৃন্দ।